রাজ্যের খবর

চোলাই মদের বিরুদ্ধে সচেতনতা অভিযানে গুরুত্ব রাজ্যপালের

চোলাই মদ

গুয়াহাটিঃ রাজ্যে সম্প্ৰতি ঘটে যাওয়া বিষ মদ কাণ্ডের পর আবগারি মন্ত্ৰী পরিমল শুক্লবৈদ্য শুক্ৰবার রাজভবনে গিয়ে রাজ্যপাল জগদীশ মুখির সঙ্গে দেখা করেন। বিষ মদ কাণ্ডে ১৫০-এর বেশি লোকের মৃত্যুর পর আবগারি বিভাগ এধরনের ঘটনার পুনরাবৃত্তি রুখতে কী ব্যবস্থা নিয়েছে শুক্লবৈদ্য সে সম্পর্কে রাজ্যপালকে অবগত করান।

আবগারি মন্ত্ৰী বলেন,স্থানীয়ভাবে তৈরি করা চোলাই মদ খেয়ে এতগুলি তাজা প্ৰাণ অকালে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়লো। চোলাই মদের পরিণাম কী বিষময় হতে পারে সে ব্যাপারে রাজ্যের সর্বত্ৰ মানুষের মধ্যে সচেতনতা সৃষ্টির জন্য প্ৰচার অভিযান চালানো হচ্ছে। এধরনের ঘটনার পুনরাবৃত্তি যাতে না হয় তার জন্য বিভাগটিকে পর্যাপ্ত ক্ষমতা দেওয়া হয়েছে। রাজ্যপাল অবশ্য মন্ত্ৰীকে বলেছেন,রাজ্যের সর্বত্ৰ বিশেষকরে চা বাগান এলাকায় কেউ যাতে বিষাক্ত চোলাইয়ের দিকে না ঝুঁকে তারজন্য গণ সচেতনতা গড়ে তুলতে হবে। মুখি আরও বলেছেন,রাজ্যের অ্যান্টি-ড্ৰাগ অ্যান্ড প্ৰোহেবিশন কাউন্সিলের সারা রাজ্য জুড়ে সচেতনতা অভি্যান আরও জোরদার করে তোলা চাই।

এজাতীয় মদ থেকে মানুষকে দূরে সরিয়ে রাখার নিরন্তর চেষ্টা চালাতে হবে। চোলাইয়ের নেশা মন থেকে মুছে ফেলার জন্য মানুষকে বোঝাতে হবে প্ৰতিনিয়ত। বিশেষ করে চা বাগান ও আশপাশ এলাকার মানুষকে এব্যাপারে শিক্ষিত করে তোলার ওপর বিশেষ গুরুত্ব দিয়েছেন রাজ্যপাল। চোলাই এবং অন্যান্য মাদক স্বাস্থ্যের ক্ষেত্ৰে যে কতটা ক্ষতিকারক সে সম্পর্কে তাদের বুঝিয়ে শুনিয়ে এর থেকে দূরে রাখার চেষ্টা জারি রাখতে হবে। ধর্মীয় গোষ্ঠী এবং এনজিওগুলোকেও প্ৰচারের কাজে লাগানোর ওপর গুরুত্ব দেন রাজ্যপাল। তাছাড়া বিভিন্ন জন অধ্যুষিত স্থান,শিক্ষা প্ৰতিষ্ঠান ও হাটবাজার ইত্যাদিতে সচেতনতা সভা আয়োজনেও রাজ্যপাল গুরুত্ব দিয়েছেন।