Begin typing your search above and press return to search.

লন্ডন পুলিশের হেফাজতে পিএনবি কেলেংকারির অভিযুক্ত নীরব মোদি

লন্ডন পুলিশের হেফাজতে পিএনবি কেলেংকারির অভিযুক্ত নীরব মোদি

Sentinel Digital DeskBy : Sentinel Digital Desk

  |  21 March 2019 11:10 AM GMT

লন্ডনঃ পঞ্জাব ন্যাশনাল ব্যাংক(পিএনবি)থেকে জালিয়াতি করে ১৩,৫০০ কোটি টাকা হাতিয়ে নেওয়ার মূল অভিযুক্ত পলাতক হিরে ব্যবসায়ী নীরব মোদি অবশেষে লন্ডন পুলিশের হাতে গ্ৰেপ্তার হলেন। মঙ্গলবার বিকেলে হলবোর্ন থেকে লন্ডন পুলিশ ভারতীয় কর্তৃপক্ষের হয়ে তাকে গ্ৰেপ্তার করে। বুধবার তাকে ওয়েস্ট মিনিস্টার ম্যাজিস্ট্ৰেট কোর্টে তোলা হয়। মোদি জামিনের জন্য আবেদন করেছিলেন। কিন্তু কোর্ট তা নাকচ করে দেয়। আগামি ২৯ মার্চ পরবর্তী শুনানি পর্যন্ত আদালত তাকে লন্ডন পুলিশের হেফাজতে রাখার নির্দেশ দিয়েছে।।

এদিকে বুধবার মুম্বইয়ে বিশেষ আদালতে অনুমোদন পাওয়ার পর এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেট(ইডি)পলাতক হিরে ব্যবসায়ী নীরব মোদির ১৭৩টি পেন্টিং এবং ১১টি গাড়ি নিলামে বিক্ৰি করার প্ৰক্ৰিয়া খুব শিগগিরই শুরু করবে।

তথ্যাভিজ্ঞ মহলের মতে,ওয়েস্ট মিনিস্টার কোর্ট তাদের দীর্ঘ শুনানি প্ৰক্ৰিয়া চলাকালে এটা স্থির করেছে যেহেতু মোদি মোটা অঙ্কের তহবিল তছরুপের ঘটনায় জড়িয়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছেন সেইহেতু তাকে মেট্ৰোপলিটান পুলিশ হেফাজতে রাখা উচিত। ভারত থেকে পালিয়ে যাওয়ার ১৪ মাস পর লন্ডন পুলিশ তাকে গ্ৰেপ্তার করে। ওয়েস্ট মিনিস্টার কোর্ট তার বিরুদ্ধে গ্ৰেপ্তারির পরোয়ানা জারি করার এক সপ্তাহ পর তাকে গ্ৰেপ্তার করা হয়। ২০১৮ সালের জানুয়ারিতে ব্যাংক জালিয়াতির ঘটনা ফাঁস হওয়ার আগেই নীরব মোদি দেশ থেকে পালিয়ে গিয়েছিলান। ব্ৰিটেনের স্বরাষ্ট্ৰ সচিব সাজিদ জাভিদ নীরব মোদিকে প্ৰত্যর্পণের জন্য ভারতের অনুরোধের কথা পেশ করার পরই কোর্ট মোদির বিরুদ্ধে গ্ৰেপ্তারি পরোয়ানা জারি করে। এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেট(ইডি)এবং কেন্দ্ৰীয় তদন্ত ব্যুরোর(সিবিআই)অনুরোধের পর ইণ্টারপোল ২০১৮-র জুলাইয়ে নীরব মোদির বিরুদ্ধে রেড কর্নার নোটিশ ইস্যু করেছিল। এই হিরে ব্যবসায়ী এতদিন কোথায় ছিলেন তা নিয়েও রহস্যের সৃষ্টি হয়েছিল। নিউইয়র্ক,হংকং এবং অন্যান্য শহরে তাকে দেখা গেছে বলে রিপোর্ট প্ৰকাশিত হয়েছিল। পিএনবি কেলেংকারিতে নীরব মোদির আঙ্কল মেহুল চোকসিও জড়িত থাকার অভিযোগ রয়েছে। সিবিআই পিএনবি কেলেংকারির আনুষ্ঠানিক তদন্তের কাজ শুরু করার আগেই দেশ ছেড়েছিলেন মোদি।

ইডি গত বছর ২৪ ও ২৬ মে পিএনবি কেলেংকারিতে অভি্যুক্ত এই দুজনের বিরুদ্ধে চার্জশিট দাখিল করেছিল। তাদের বিরুদ্ধে জামিন অযোগ্য গ্ৰেপ্তারি পরোয়ানাও জারি করা হয়েছিল।

অবশেষে নীরব মোদিকে লন্ডনে দেখা গেছে বলে দ্য টেলিগ্ৰাফ সংবাদপত্ৰে প্ৰতিবেদন প্ৰকাশিত হওয়ার কয়েকদিন পরই ঘটনার রূপরেখা পাল্টে যায়। ওই রিপোর্টে আরও দাবি করা হয়েছে লন্ডনে নিজের এপার্টমেণ্টের কাছেই নতুন হিরের ব্যবসা ফেঁদেছেন নীরব। সোহোর কার্যালয় থেকে এই নতুন ব্যবসা চালাচ্ছিলেন তিনি। ২০১৮ সালের মে মাসে এই নতুন ব্যবসা তিনি শুরু করেছেন বলে ওই রিপোর্টে উল্লেখ করা হয়েছে।

Next Story