সংবাদ শিরোনাম

কাজিরঙায় বিশাল উড়াল সেতুর প্ৰস্তাব,চলছে ডিপিআর প্ৰস্তুতি

কাজিরঙা

গুয়াহাটিঃ কাজিরঙা রাষ্ট্ৰীয় উদ্যানে উচ্চাশামূলক উঁচু সড়ক প্ৰকল্প অথবা উড়াল সেতু নির্মাণের জন্য বিস্তারিত প্ৰোজেক্ট রিপোর্ট(ডিপিআর)প্ৰস্তুতির কাজ এগিয়ে চলেছে। প্ৰস্তাবিত এই উড়াল সেতু নিয়ে আশার আলো দেখা যাচ্ছে। উড়াল সেতুটি হলে বিশ্বখ্যাত কাজিরঙা রাষ্ট্ৰীয় উদ্যানে বন্যপ্ৰাণী সংরক্ষণে এটা হবে এক চমকপ্ৰদ ব্যবস্থা।

প্ৰস্তাবিত উড়াল সেতুটি হবে ৩৭নং রাষ্ট্ৰীয় সড়কের ওপর। জখলাবন্ধা থেকে কহরা রেঞ্জের প্ৰায় কাছ পর্যন্ত দীর্ঘ এলাকা আসবে এর আওতায়। কাজিরঙার বুক চিরে যাবে সেতুটি। উড়াল সেতুর দৈর্ঘ্য হবে যথাক্ৰমে ৩৮.৮৪কি.মি. এবং প্ৰস্থ ১১ মিটার।

ন্যাশনাল হাইওয়ে অথরিটি অফ ইন্ডিয়া(এনএইচএআই)বর্তমানে সেতুটির বিস্তারিত প্ৰোজেক্ট রিপর্ট(ডিপিআর)প্ৰস্তুত করছে এবং আশা করা হচ্ছে বছরের শেষাশেষি রিপোর্ট সম্পূর্ণ হয়ে যাবে।

বুধবার স্টেট বোর্ড অফ ওয়াইল্ড লাইফ-এর একাদশতম বৈঠকে প্ৰকল্পটি নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করা হয়। মুখ্যমন্ত্ৰী সর্বানন্দ সোনোয়ালের পৌরোহিত্যে অনুষ্ঠিত হয় বৈঠকটি। প্ৰকল্পটির গুরুত্বের ওপর আলোকপাত করে সোনোয়াল প্ৰোজেক্ট রিপোর্ট প্ৰস্তুতি ও তা দাখিলের কাজ আগামি অক্টোবরের মধ্যে সম্পূর্ণ করার ওপর জোর দেন। মুখ্যমন্ত্ৰী বলেন,কাজিরঙায় উন্নীত এই সড়ক প্ৰকল্পটি নির্মাণ হলে এটা পর্যটক আকর্ষণের অন্যতম স্থান হয়ে দাঁড়াবে এবং সেইসঙ্গে বন্যপ্ৰাণী সংরক্ষণের উৎকৃষ্ট উদাহরণ হবে।

বন ও পরিবেশ দপ্তরের মন্ত্ৰী পরিমল শুক্লবৈদ্যও বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন। তিনি শুক্ৰবার দ্য সেন্টিনেলকে বলেন,সব ঠিকঠাক এগোলে ২০২১ সাল থেকে প্ৰকল্পের কাজ শুরু হবে। তিনি বলেন,প্ৰকল্পটি এখন পর্যন্ত কোনও আইনি বাধার মুখে পড়েনি। পরিকল্পনা অনু্যায়ী কাজ হলে ২০২১ সালের মধ্যে প্ৰকল্পের কাজ শুরু হয়ে যাবে। তিনি বলেন,এখন পর্যন্ত প্ৰকল্পটি কোনও আইনি বাধার মুখে পড়েনি এবং এটা হবে একটা পরিবেশ বান্ধব স্কিম।

শুক্লবৈদ্য আরও বলেন,উন্নীত এই সড়ক সেতুতে সাইকেলও পথাচারীদের কাছে পৃথক স্ট্যাচেস। তিনি বলেন,বৃক্ষরোপণ হবে এই প্ৰকল্পের অন্যতম আকর্ষণীয় বিষয়। প্ৰকল্প খাতে ব্যয় হবে আনুমানিক ২৬২৫ কোটি টাকা।

 

অন্যান্য খবরের জন্য পড়ুনঃ লাগাতার নদী ভাঙন কাজিরঙায় জমির পরিসর সঙ্কুচিত করছে

অধিক খবরের জন্য ভিডিও দেখুন: Public blocks Kampur-Jamunamukh PWD road | The Sentinel News | Assam News