রাজ্যের খবর

বেতন রিলিজ করার দাবি শিক্ষক সংস্থার

শিক্ষক সংস্থা

 

গুয়াহাটিঃ সারা অসম বেতন বঞ্চিত কর্মরত প্ৰাথমিক শিক্ষক সংস্থা ঘোষণা করেছে বকেয়া প্ৰাপ্য বেতন মিটিয়ে দেওয়া না হলে তারা মুখ্যমন্ত্ৰীর বাড়ির সামনে প্ৰতিবাদ ধরনায় বসবে।

সংস্থার সম্পাদক রমেন শইকিয়া শুক্ৰবার দ্য সেন্টিনেলকে বলেন,‘রাজ্য সরকার ১৯৮৯ থেকে ২০০১ সালের মধ্যে ১২০৯৩ জন শিক্ষক নিয়োগ করেছিল। কিন্তু এই সমস্ত শিক্ষকরা তাঁদের বেতন থেকে বঞ্চিত রয়েছেন। এত বছর কেটে যাওয়ার পর অনেক শিক্ষক ইতিমধ্যেই অবসর নিয়েছেন। কয়েকজনের মৃত্যুও হয়েছে। বর্তমানে এই সমস্ত শিক্ষকের সংখ্যা হলো ১১৭৮৮ জন। কিন্তু তাদের বেতন আজ অবধি ঝুলিয়ে রাখা হয়েছে-উল্লেখ করেন শইকিয়া।

পুরো বিষয়টিকে দুঃখজনক বলে আখ্যায়িত করেন তিনি। রাজ্য সরকার পুরো বিষয়টিকে আজ অবধি গুরুত্ব সহকারে নেয়নি বলে উল্লেখ করেন শইকিয়া।

তিনি আরও বলেন,‘রাজ্য সরকারের তরফে গঠিত তদন্ত কমিটি একটি রিপোর্ট দাখিল করে আমাদের কার্যনির্বাহী শিক্ষক হিসেবে অভিহিত করেছিল। তাই সমাজের হিত সাধনে অবদান রাখার পরও আমরা বেশ কবার সরকারের মুখোমুখি হয়ে বেতনের টাকা রিলিজ করার জন্য অনুরোধ জানিয়েছে। কিন্তু প্ৰত্যেকবারই আমাদের হতাশ হতে হয়েছে’।

তাই আগামি ডিসেম্বরের আগে আটকে রাখা বেতনের অর্থ যদি রিলিজ করা না হয় তাহলে ১ ডিসেম্বর মুখ্যমন্ত্ৰীর বাড়ির সামনে প্ৰতিবাদ ধরনায় বসবো আমরা-বলেন শইকিয়া।

সংস্থার সম্পাদক শইকিয়া আরও বলেন,২০১৮ সালে লখিমপুরে অনুরূপ প্ৰতিবাদ ধরনার আয়োজন করা হয়েছিল। ওই সময়ের সমাজকল্যাণ মন্ত্ৰী প্ৰমীলা রানি ব্ৰহ্ম আশ্বাস দিয়েছিলেন এই ইস্যুটি অচিরেই সমাধান করার।

শইকিয়া বলেন,সংস্থা এ নিয়ে রাজ্যের শিক্ষামন্ত্ৰী সিদ্ধার্থ ভট্টাচার্যের সঙ্গে দেখা করেছিল। ভট্টাচার্য আশ্বাস দিয়েছিলেন ঘাটতি শিক্ষক পদগুলি নিয়মিত করা হবে এবং সেইসঙ্গে বেতনের টাকাও রিলিজ করা হবে। কিন্তু এক বছর কেটে যাওয়ার পর সরকারের তরফ থেকে ওই প্ৰতিশ্ৰুতি পূরণে কোনই পদক্ষেপ নেওয়া হয়নি-বলেন শইকিয়া।

 

অন্যান্য খবরের জন্য পড়ুনঃ লখিমপুর জেলার ১১০টি মণ্ডপে পুজোর আয়োজন

অধিক খবরের জন্য ভিডিও দেখুন: Durga Puja 2019: Durga Puja Celebrations from Assam Bhawan in Navi Mumbai