রাজ্যের খবর

রায়,কুজুর,ভুঁইয়া আনুষ্ঠানিকভাবে বিজেপিতে যোগ দিলেন

বিজেপি

গুয়াহাটিঃ রাজ্যের তিন কংগ্ৰেস নেতা অবশেষে ভারতীয় জনতা পার্টিতে(বিজেপি)যোগ দিয়েছেন। রাজ্যের প্ৰাক্তন মন্ত্ৰী গৌতম রায়,প্ৰাক্তন সাংসদ সান্টিয়াস কুজুর এবং অসম প্ৰদেশ যুব কংগ্ৰেসের(এপিওয়াইসি)প্ৰাক্তন সভাপতি হিরণ্য ভুঁইয়া রবিবার গুয়াহাটির অটলবিহারী বাজপেয়ী ভবনে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে আনুষ্ঠানিকভাবে বিজেপিতে যোগ দেন। বিজেপি-র রাজ্য সভাপতি রঞ্জিৎ কুমার দাস,এনইডিএ(নেডা)-র আহ্বায়ক হিমন্তবিশ্ব শর্মা এবং অন্যান্যদের উপস্থিতিতে এই তিন কংগ্ৰেসি নেতা গেরুয়া দলে শামিল হন।

এই তিন প্ৰাক্তন কংগ্ৰেস নেতা বলেছেন,বিজেপি সরকারের কাজকর্মে প্ৰভাবিত হয়েই তাঁরা ওই দলে যোগ দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। দাস বলেন,‘তাঁরাও এখন আমাদের মতো বিজেপি কর্মী হলেন। সংবাদ মাধ্যমগুলো গৌতম রায়কে বরাকের তথাকথিত রাজা আখ্যা দিলেও বিজেপিতে তিনি যে রাজার ভূমিকা পালন করতে পারছেন না সেটা গোড়াতেই তাঁকে বুঝিয়ে দিয়েছেন দল সভাপতি রঞ্জিৎ দাস। দাস আরও বলেছেন,বিজেপি কর্মসংস্কৃতিই বোঝে। তাই এই দলে থাকলে প্ৰত্যেককেই দলের সাধারণ কর্মকর্তা হতে হবে। ‘সেইহেতু রায় এখন আর বরাকের রাজা নন। অন্যান্যদের মতো দলের একজন সাধারণ কর্মী তিনি’।

নেডার আহ্বায়ক হিমন্তবিশ্ব শর্মা বলেন,আচরণগত দিক থেকে কংগ্ৰেসের সঙ্গে বিজেপির অনেক পার্থক্য রয়েছে। বিজেপির নিজস্ব একটা আদর্শ আছে। ‘তাই তাঁরা যখন বিজেপি যোগ দিয়েছেন তখন কংগ্ৰেসি আচার আচরণের ধারা তাঁদের ভুলে যেতে হবে। যদি তাঁরা কংগ্ৰেসি হাবভাব ধরে রাখার চেষ্টা করেন তাহলে তাঁদের দলে টিকে থাকা সম্ভব হবে না’। ‘তাঁরা কংগ্ৰেস থেকে অনেক পেয়েছেন। এখন তাদের বিজেপিকে কিছু দেওয়ার জন্য প্ৰস্তুত হতে হবে। তাই মনোভাব এবং আচার আচরণে পরিবর্তন হলে তা বিজেপির সঙ্গে খাপ খাওয়াতে তাঁদের সাহা্য্যই করবে। কেউ যদি সমাজের জন্য কিছু দিতে বা করতে চান তাহলে তাঁদের ক্ষেত্ৰে বিজেপিই হচ্ছে সঠিক মঞ্চ’।

 

অন্যান্য খবরের জন্য পড়ুনঃ অবশেষে গেরুয়া বসন পরলেন ভুবনেশ্বর কলিতা

অধিক খবরের জন্য ভিডিও দেখুন: Bipasa Hrangkhawal- the first woman air traffic controller of Tripura