ন্যাশনাল

অনাদায়ী ঋণের দায়ে ৬ হাজার ব্যাঙ্ক আধিকারিকের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা

অনাদায়ী ঋণ

অনাদায়ী ঋণের দায়ে রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাঙ্কের প্রায় ৬ হাজার আধিকারিকের বিরুদ্ধে কেন্দ্রের তরফে শাস্তিমূলক পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়েছে বলে  জানালেন কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী অরুণ জেটলি।এ দিন একটি লিখিত প্রশ্নের জবাবে অর্থমন্ত্রী জানিয়েছেন, ২০১৭-১৮ আর্থিক বছরে এ ব্যাপারে অভিযুক্ত ৬,০৪৯ জন অভিযুক্ত ব্যাঙ্ক আধিকারিকের বিরুদ্ধে ক্ষেত্র বিশেষে লঘু ও গুরুদণ্ডের ব্যবস্থা করে হয়েছে।

আরও খোলসা করে তিনি জানান, শাস্তি হিসাবে বরখাস্ত, বাধ্যতামূলক অবসর এবং পদোবনতির শাস্তি দেওয়া হয়েছে।শুধু তাই নয়, অনাদায়ী ঋণে বিতরণে ভূমিকা খতিয়ে দেখে বৃহত্তর পদক্ষেপও নেওয়া হয়েছে। একই সঙ্গে অভিযোগের পরিমাপ নির্ধারণ করে অভিযুক্তদের কারও কারও বিরুদ্ধে পুলিশ এবং সিবিআইয়ের কাছেও অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে।জানা গিয়েছে, গত ২০১৭-১৮ আর্থিক বছরের তুলনায় তিনগুণেরও বেশি বেড়েছে চলতি বছরের প্রথমার্ধের অনাদায়ী ঋণের পরিমাণ।

আগের অর্থবর্ষ ঠিক একই সময়ে যেথানে অনাদায়ী ঋণের পরিমাণ ছিল ৬,৮৬১ কোটি টাকা, সেখানে পিএনবি এবং কানাড়া ব্যাঙ্ক মিলিয়ে ১৯টি রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাঙ্কের অনাদায়ী ঋণের পরিমাণ ছুঁয়েছে ২১,৩৮৮ কোটি টাকা।রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাঙ্কগুলির অনাদায়ী ঋণের পরিমাণ ক্রমশ বেড়ে চলায় যথেষ্ট চিন্তিত কেন্দ্র সরকার। তবে পাশাপাশি সেগুলি থেকে নিষ্কৃতীর একাধিক পদক্ষেপও সরকারের তরফে নেওয়া হয়ে চলেছে বলে জানানো হয়।