Top
Begin typing your search above and press return to search.

অরুণাচল প্ৰদেশে হিংসাশ্ৰয়ী ঘটনার তদন্তের নির্দেশ পেমা খাণ্ডুর

অরুণাচল প্ৰদেশে হিংসাশ্ৰয়ী ঘটনার তদন্তের নির্দেশ পেমা খাণ্ডুর

Sentinel Digital DeskBy : Sentinel Digital Desk

  |  26 Feb 2019 10:49 AM GMT

ইটানগরঃ স্থায়ী নাগরিকের প্ৰমাণপত্ৰ(পিআরসি)ইস্যুকে কেন্দ্ৰ করে অরুণাচল প্ৰদেশে যে হিংসাশ্ৰয়ী ঘটনা ঘটে গেছে তার তদন্তে রাজ্য মন্ত্ৰিসভা সোমবার একটি তদন্ত কমিটি গঠনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে। পিআরসি-ইস্যুকে কেন্দ্ৰ করে রাজ্যে হিংসাশ্ৰয়ী ঘটনার প্ৰেক্ষিতে পুলিশের গুলিতে তিন ব্যক্তির মৃত্যু হয়। পিআরসি বিরোধী আন্দোলনকারীদের অগ্নি সংযোগের ঘটনায় বহু সরকারি ও বেসরকারি সম্পত্তি পুড়ে ছাই হয়ে যায়। মুখ্যমন্ত্ৰী পেমা খান্ডুর পৌরোহিত্যে অনুষ্ঠিত হয় বৈঠকটি। খান্ডু বলেন,তদন্ত কমিটির নেতৃত্বে থাকছেন কমিশনার পর্যায়ের একজন আধিকারিক। আন্দোলনকারীদের রোষে যে সব সরকারি ও বেসরকারি সম্পত্তি নষ্ট হয়েছে সেই ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ খতিয়ে দেখতে আরও একটি কমিটি গড়া হচ্ছে।

ইটানগরে হিংসাশ্ৰয়ী আন্দোলন চলাকালে পুলিশের গুলিতে নিহত তিন ব্যক্তির প্ৰত্যেক পরিবারের জন্য মুখ্যমন্ত্ৰী খান্ডু এককালীন ২০ লক্ষ টাকা সাহা্য্য ঘোষণা করেছেন। তাছাড়া নিহতদের পরিবারের একজন সদস্যকে চাকরি দেওয়ার কথাও ঘোষণা করেছেন খান্ডু। মুখ্যমন্ত্ৰী বলেন,আন্দোলনে আহতদের প্ৰত্যেককে ১০ লক্ষ টাকা করে সাহা্য্য দেওয়া হবে। মন্ত্ৰিসভার এই বৈঠকে রাজধানী ইটানগর এবং এর লাগোয়া শহর নাহরলাগুনের আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতিও খতিয়ে দেখা হয়। রাজ্যের সমস্ত জেলা প্ৰশাসন ও পুলিশ কর্মকর্তাদের সতর্ক থাকতে বলে দেওয়া হয়েছে। তাছাড়া যেকোনও ধরনের গুজব প্ৰতিহত করতেও প্ৰশাসনকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে মন্ত্ৰিসভার তরফে।

রাজ্যে বসবাসকারী ছয় জনগোষ্ঠীকে পিআরসি ইস্যুর প্ৰস্তাব নিয়ে রাজ্যের পরিস্থিতি উত্তপ্ত হয়ে ওঠে। আন্দোলনকারীরা এই ইস্যুর প্ৰতিবাদে মারমুখী হয়ে অগ্নিসংযোগে লিপ্ত হয়। বেশকিছু সরকারি ও বেসরকারি গাড়ি পুড়িয়ে ফেলে উন্মত্ত জনতা। ইটপাটকেল নিক্ষেপ ছাড়াও ইটানগর ও নাহরলাগুনে একাধিক হিংসাত্মক ঘটনা ঘটে। ইটানগরে উন্মত্ত জনতাকে ছত্ৰখান করতে পুলিশ গুলি চালালে তিনজনের মৃত্যু হয়। এই ঘটনার পর পরিস্থিতি নিয়ন্ত্ৰণে আনতে ইটানগরে কার্ফু জারি করা হয়। আজও ওখানে কার্ফু বহাল রয়েছে ওখানে।

এদিকে কেন্দ্ৰীয় স্বরাষ্ট্ৰ প্ৰতিমন্ত্ৰী কিরেন রিজিজু সোমবার অরুণাচল প্ৰদেশ সরকারকে রাজ্যে শান্তি ফিরিয়ে আনতে অবিলম্বে সমস্ত দাবিদারদের সঙ্গে আলোচনা প্ৰক্ৰিয়া শুরু করার পরামর্শ দিয়েছেন। রাজ্যের ছয় জনগোষ্ঠীকে পিআরসি দেওয়ার প্ৰস্তাব নিয়েই রাজ্যের পরিস্থিতি অগ্নিগর্ভ হয়ে ওঠে। গত শনিবারই ইটানগর ও নাহরলাগুনে কার্ফু বলবৎ করা হয়। রিজিজু এক স্পষ্টীকরণে বলেন,পেমা খান্ডু সরকার রাজ্যের অ-অরুণাচলি ছয় উপজাতি জনগোষ্ঠীকে পিআরসি ইস্যু না করার সিদ্ধান্ত নিয়েছিল।

কিচ্বু তারা বিষয়টি সঠিকভাবেই জনগণকে বোঝাতে ব্যর্থ হয়েছে। ইস্যুটি নিয়ে সব রাজনৈতিক দল ও সংগঠনের সঙ্গে আলোচনার ব্যবস্থা করতে রাজ্য সরকারকে পরামর্শ দিয়েছেন তিনি। রিজিজু বলেন,আসলে রাজ্য সরকার বিষয়টি জনগণকে ঠিকঠাক বোঝাতে পারেনি। আর সেজন্যই রাজ্যের মানুষ ক্ষেপে যান। এদিকে ইটানগরে কার্ফুর মেয়াদ বুধবার সকাল ৯টা পর্যন্ত বাড়িয়ে দেওয়া হয়েছে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি বাগে আনার লক্ষ্যে। ইটানগর রাজধানী চত্বরের জেলাশাসক প্ৰিন্স ধাওয়ান বলেন,পরিস্থিতি শিগগিরই স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরে আসবে বলে তিনি আশা করছেন।

Next Story