Begin typing your search above and press return to search.

উইং কমান্ডার অভিনন্দনকে স্বাগত জানাতে ওয়াঘায় অধীর অপেক্ষায় প্ৰতিরক্ষা কর্মীরা

উইং কমান্ডার অভিনন্দনকে স্বাগত জানাতে ওয়াঘায় অধীর অপেক্ষায় প্ৰতিরক্ষা কর্মীরা

Sentinel Digital DeskBy : Sentinel Digital Desk

  |  1 March 2019 8:43 AM GMT

গুয়াহাটিঃ ভারতীয় বায়ু সেনার উইং কমান্ডার অভিনন্দন বর্থমানকে আজ মুক্তি দিচ্ছে পাকিস্তান। ইমরান খানের নেতৃত্বাধীন পাকিস্তান সরকার বৃহস্পতিবার ঘোষণা দিয়েছে শুক্ৰবার তারা অভিনন্দনকে মুক্তি দিচ্ছে। প্ৰাপ্ত রিপোর্ট অনু্যায়ী,উইং কমান্ডার অভিনন্দনকে ওয়াঘা সীমান্তে ছেড়ে দেওয়া হবে। তবে পাকিস্তান ভারতীয় বায়ু সেনার এই পাইলটকে ইন্টারন্যাশনাল কমিটি অফ রেডক্ৰশ না ভারতীয় কর্তৃপক্ষকে হস্তান্তর করবে সেব্যাপারে পরিষ্কার করে কিছু জানা যায়নি। পাক প্ৰধানমন্ত্ৰী ইমরান খান আলোচনার প্ৰস্তাব দিলেও ভারত তা প্ৰত্যাখ্যান করে। উইং কমান্ডার বর্থমানের মুক্তির বিনিময়ে ভারত কোনওরকম ডিল করবে না-সাফ জানিয়ে দেয় নতুন দিল্লি।

ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যে উত্তেজনার পারদ চড়ে তখন তুঙ্গে। এরই মধ্যেই ভারত সরকার উইং কমান্ডার অভিনন্দনের অবিলম্বে নিশর্ত ও নিরাপদ প্ৰত্যাবর্তনের দাবি জানায়। ভারতের পক্ষ থেকে অভিনন্দনের যাতে কোনওরকম ক্ষতি না হয় তা সুনিশ্চিত করারও পরামর্শ রাখা হয়।

গত বুধবার থেকে অভিনন্দন পাক হেফাজতে রয়েছেন। পাকিস্তানের বিমান হানা প্ৰতিহত করতে দুটো পাক এফ-১৬ বিমানের পিছু তাড়া করে যান অভিনন্দন তার মিগ-২১ বিমান নিয়ে। আকাশেই পাক বিমানকে গুলি করে নামাতে সফল হন তিনি। কিন্তু এর পরই তার মিগ ২১ বিমানটি গুলি করে নামায় পাকিস্তান। অভিনন্দন প্যারাসুটে নেমে গেলেও পাকিস্তানের মাটিতে গিয়ে পড়েন। তখনই পাক সেনা তাকে হেফাজতে নেয়। প্ৰাপ্ত রিপোর্ট অনু্যায়ী,ওয়াঘা সীমান্তে উইং কমান্ডার অভিনন্দনকে স্বাগত জানাতে উপস্থিত থাকবেন বায়ু সেনার একটি দল।

ওদিকে চেন্নাই থেকে অভিনন্দনের অভিভাবকরা ইতিমধ্যেই দিল্লি পৌঁছে গেছেন এবং দিল্লি থেকে বিমানে তাঁরা অমৃতসরে যাচ্ছেন ছেলেকে স্বাগত জানাতে। এদিকে পঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্ৰী অমরিন্দর সিং আটারি সীমান্তে উইং কমান্ডারকে স্বাগত জানাতে উপস্থিত থাকার প্ৰস্তাব রেখেছেন। কংগ্ৰেস নেতা এক টুইটে প্ৰধানমন্ত্ৰী নরেন্দ্ৰ মোদিকে ওই অনুরোধ জানিয়েছেন।

অমরিন্দর সিং টুইটে লিখেছেন ‘প্ৰিয় মোদিজি,আমি বর্তমানে পঞ্জাব সীমান্ত পরিদর্শনে রয়েছি এখন আমি অমৃতসরে আছি। আমি জানতে পেরেছি পাকিস্তান সরকার তাদের হেফাজত থেকে উইং কমান্ডার অভিনন্দনকে ওয়াঘা সীমান্তে মুক্তি দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। তাই তাঁকে স্বাগত জানাতে আমি সেখানে উপস্থিত থাকতে আগ্ৰহী। আপনার অনুমতি পেলে এটা আমার কাছে খুবই সম্মানের বিষয় হবে যেহেতু অভিনন্দন ও তাঁর বাবার মতো আমিও এনডিএ-র ছাত্ৰ ছিলাম’।

প্ৰাপ্ত খবরে জানা গেছে,পাক কর্তৃপক্ষ রাওয়ালপিন্ডি থেকে অভিনন্দনকে লাহোরে নিয়ে আসবে এবং জেনেভা কনভেনশনের নিয়ম অনু্যায়ী প্ৰথমে ইন্টারন্যাশনাল কমিটি অফ রেডক্ৰসের হাতে অর্পণ করবে। এরপরই বেলা তিনটায় তাঁকে তুলে দেওয়া হবে জেসিপির হাতে। তাঁকে স্বাগত জানাতে ওখানে অপেক্ষায় থাকবেন প্ৰতিরক্ষা কর্মকর্তারা।

Next Story