Top
undefined
Begin typing your search above and press return to search.

নাগরিকত্ব বিল নিয়ে বিজেপি সরকারের সমালোচনা তরুণ গগৈর

নাগরিকত্ব বিল নিয়ে বিজেপি সরকারের সমালোচনা তরুণ গগৈর

Sentinel Digital DeskBy : Sentinel Digital Desk

  |  28 Jan 2019 1:30 PM GMT

গুয়াহাটিঃ নাগরিকত্ব(সংশোধনী)বিল ২০১৯ এবং জাতীয় নাগরিক পঞ্জি(এনআরসি)নবায়ন নিয়ে রাজ্যের প্ৰাক্তন মুখ্যমন্ত্ৰী তরুণ গগৈ বিজেপি সরকারের সমালোচনা করেছেন। সুধাকণ্ঠ ড.ভূপেন হাজরিকাকে দেশের সর্বোচ্চ অসামরিক সম্মান ভারতরত্ন দেওয়া প্ৰসঙ্গে গগৈ বলেন,হাজরিকা আজ জীবিত থাকলেও তিনিও নাগরিকত্ব বিলের বিরোধিতাই করতেন। রবিবার এখানে সাংবাদিকদের তরুণবাবু বলেন,বিলের বিরুদ্ধে অসম ও উত্তর পূর্বাঞ্চলের অন্যান্য রাজ্যে গণতান্ত্ৰিক প্ৰতিবাদের যে ঝড় বইছে রাজ্যের বিজেপি সরকার তাতে গুরুত্বই দিচ্ছে না।

রাজ্য সরকার ওই বিলের পক্ষেই যুক্তি দেখাচ্ছে। ওই বিল কংগ্ৰেসের সামনেও একটা চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে দিয়েছে। ‘আমরা রাজ্যসভায় ওই বিল পাসের কোনও সু্যোগ না দিতে দৃঢ় সংকল্পবদ্ধ। ছমাস আগেই কংগ্ৰেস ওয়র্কিং কমিটির(সিডব্লিউসি)বৈঠকে আমি ওই বিলের বিরোধিতা করেছিলাম। অসমের মানুষ কেন ওই বিল চান না সিডব্লিউসি-র বৈঠকে আমি সেকথা বুঝিয়ে বলেছিলাম। প্ৰয়োজন হলে বিলের বিরুদ্ধে আমরা কংগ্ৰেস হাইকমান্ডের সঙ্গে কথা বলবো। এই বিল ধর্মনিরপেক্ষতার সম্পূর্ণ পরিপন্থী। এজাতীয় বিল পাস করতে হলে ভারত সরকারকে প্ৰথমে সংবিধান সংশোধন করতে হবে। অসম ও উত্তরপূর্বাঞ্চলের অন্যান্য রাজ্যের মানুষের গণতান্ত্ৰিক প্ৰতিবাদকে অবজ্ঞা করে সরকার হিটলারি ও স্বৈরতান্ত্ৰিক শাসন কায়েমের চেষ্টা করছে’-বলেন গগৈ।

রাজ্যে এনআরসি নবায়ন সম্পর্কে গগৈ বলেন,‘এনআরসি নবায়নের নামে কোটি টাকা বৃথাই খরচ করা হয়েছে। ৪০ লক্ষেরও বেশি লোকের নাম এনআরসির পূর্ণাঙ্গ খসড়ায় অন্তর্ভুক্ত করা হয়নি। এনআরসিতে নাম অন্তর্ভুক্ত না হওয়া ব্যক্তিরাও ২০১৯-এর লোকসভা নির্বাচনে ভোটাধিকার পাচ্ছেন। এধরনের পরিস্থিতিতে এনআরসি নবায়নের অর্থ কী দাঁড়ায়’-প্ৰশ্ন তোলেন তিনি।

ড.ভূপেন হাজরিকাকে ভারতরত্ন খেতাব দেওয়া সম্পর্কে গগৈ বলেন,হাজরিকাকে এই সম্মান দেওয়ার জন্য আমরা খুবই খুশি। তবে হাজরিকা আজ বেঁচে থাকলে তিনিও অবলীলায় এই বিলের বিরোধিতা করতেন। অসমের খ্যাতনাম শিল্পী জুবিন গার্গকে পদ্মশ্ৰী সম্মান কেন দেওয়া হলো না সেই প্ৰশ্নও তুলেছেন গগৈ।

Next Story