Top
Begin typing your search above and press return to search.

নাগরিকত্ব সংশোধনী আইনের প্রতিবাদে ডাকা বনধে স্তব্ধ জনজীবন

নাগরিকত্ব সংশোধনী আইনের প্রতিবাদে ডাকা বনধে স্তব্ধ জনজীবন

Sentinel Digital DeskBy : Sentinel Digital Desk

  |  8 Jan 2019 10:05 AM GMT

একদিকে শ্রমিক ও কৃষক স্বার্থের দাবিতে বিভিন্ন ইস্যুতে ৪৮ ঘণ্টার বনধের প্রভাবে বিভিন্ন রাজ্যে বিশৃঙ্খল পরিস্থিতি চলছে৷ এরই পাশাপাশি নাগরিকত্ব সংশোধনী আইনের প্রতিবাদে উত্তর পূর্ব ভারতের সব রাজ্যেই সর্বাত্মক প্রভাব দেখা গেল৷ অসম, অরুণাচল প্রদেশ, মেঘালয়, নাগাল্যান্ড, মনিপুর ও মিজোরামে চলছে জোরালো প্রতিবাদ৷ আন্তঃরাজ্য সড়কে অবরোধের জেরে জনজীবন স্তব্ধ৷ আটকে গিয়েছে রেল পরিষেবা৷একইসঙে ত্রিপুরাতে চলছে সিটু সহ বিভিন্ন ট্রেড ইউনিয়নের ডাকা কেন্দ্রীয় সরকার বিরোধী দু দিনের ধর্মঘট৷ এই রাজ্যেও কয়েকটি স্থানে নাগরিকত্ব সংশোধনীর প্রতিবাদে রাস্তায় নেমে বিক্ষোভ দেখায় বিভিন্ন উপজাতি সংগঠন৷ তাদের বিরোধিতা করে বিজেপি সমর্থকরা৷ আর এর পাশাপাশি সিটু, সিপিএম কর্মী সমর্থকরা তাদের পূর্বঘোষিত বনধ বিভিন্ন দাবির ভিত্তিতে বনধ কর্মসূচি পালন করছে৷

অসমের পরিস্থিতি জটিল: গুয়াহাটি সহ রাজ্যের সর্বত্র নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল প্রত্যাহারের দাবিতে শুরু হয়েছে বিরোধী অগপ, কংগ্রেস ও বিভিন্ন সংগঠনের ডাকা ধর্মঘট৷ তাতে পরিস্থিতি ক্রমে ঘোরালো হচ্ছে৷ গুহাটিতে বনধ সর্বাত্মক, ধর্মঘটীদের হটাতে ডিব্রুগড়ে পুলিশ শূন্যে গুলি চালাল৷ এছাড়া কোকরাঝাড়, বঙ্গাইগাঁও, কাছাড়, হাইলাকান্দি, করিমগঞ্জ সহ সর্বত্র সরকার বিরোধী প্রবল ক্ষোভ দেখা গিয়েছে৷ সোমবারই সরকারি জোট ছেড়ে বেরিয়ে এসেছে অসম গণ পরিষদ (অগপ)৷

তাদের সমর্থকরা এদিন প্রবল বিক্ষোভ দেখান৷ বিজেপি কর্মীদের সঙ্গে বিক্ষিপ্ত সংঘর্ষ শুরু হয়েছে রাজ্যে৷ একাধিক স্থানে আটকে দেওয়া হয়েছে ট্রেন৷ধর্মঘটের জেরে তিনসুকিয়া, মারিগাঁওয়ের পরিস্থিতি উত্তপ্ত৷ এখানে বন্ধ সমর্থক ও বিজেপির মধ্যে সংঘর্ষ হয়েছে৷ রেল রোকোর জেরে অসম থেকে পশ্চিমবঙ্গ হয়ে ট্রেন চলাচল বিঘ্নিত৷ এদিকে উত্তরবঙ্গের বিভিন্ন স্থানেও বাম কর্মীরা বনধ পালন করে৷ ফলে অসম থেকে কোচবিহার-আলিপুরদুয়ার-জলপাইগুড়ি হয়ে শিলিগুড়ি ও নিউ জলপাইগুড়ি পর্যন্ত ট্রেনের চাকা বেলা গড়াতেই আটকে যায়৷ এতে প্রবল অসুবিধায় পড়েছেন যাত্রীরা৷

ত্রিপুরায় বনধের বড় প্রভাব :বিজেপি শাসিত রাজ্যে বিরোধী বামেদের সমর্থনপুষ্ট বনধ ঘিরে থমথমে পরিস্থিতি৷ সর্বশেষ বিধানসভা নির্বাচনে এই রাজ্যে বাম শাসনের পতন হয়৷ তারপরেই বিক্ষিপ্ত হিংসা ছড়ায়৷ নতুন সরকার গঠন পরবর্তী সময়ে সেই হিংসা আরও ছড়িয়েছে৷ বিরোধীদের দাবি, বিজেপি ও তাদের জোটে থাকা উপজাতি সংগঠন আইপিএফটি লাগাতার হামলা চালাচ্ছে৷ এরই মাঝে কেন্দ্রীয় সরকার বিরোধী বিভিন্ন ইস্যুতে রাজ্যের প্রধান বিরোধী দল সিপিএমের বনধ সমর্থন নিয়ে পরিস্থিতি বেশ ঘোরালো৷ রাজধানী আগরতলা, অন্যতম সহর উদয়পুর সহ বিভিন্ন স্থানে বনধের প্রভাব দেখা যাচ্ছে৷

কয়েকটি স্থানে নাগরিকত্ব সংশোধনী বিলের প্রতিবাদে পথে নেমে বিক্ষোভ দেখায় আরও এক উপজাতি সংগঠন আইএনপিটি৷ সেখানে বিজেপি কর্মীরা তাদের রুখতে যান৷ পরে পুলিশ এসে তাদের হটিয়ে দেয়৷ অন্যদিকে, নাগাল্যান্ড, মনিপুর, মিজোরাম, অরুণাচল প্রদেশ জুড়ে নাগরিকত্ব সংশোধনী বিলের প্রতিবাদে চলছে বনধ৷ কোহিমা, ইম্ফল, ইটানগর, আইজলে বনধ পালন করছে বিভিন্ন সংগঠন৷ বেলা গড়াতেই বন্ধ হয়ে যায় শিলং বাজার৷ প্রবল শীতের মাঝেও অরুণাচলের জীবনযাত্রা থমকে গিয়েছে বনধের জেরে৷ যে কোনওরকম পরিস্থিতি সমালা দিতে নামানো হয়েছে প্রচুর পুলিশ৷

Next Story