সংবাদ শিরোনাম

‘ন্যস্ত স্বার্থান্বেষীরা রাজ্যে সংঘর্ষ বাধানোর চেষ্টা করছে’

ন্যস্ত স্বার্থান্বেষীরা

গুয়াহাটিঃ নাগরিকত্ব(সংশোধনী)বিল ২০১৯-এর প্ৰতিবাদে চলা আন্দোলনের সু্যোগে একাংশ স্বার্থান্বেষী রাজ্যে বসবাসকারী অসমিয়া,বাঙালি ও মুসলিমদের মধ্যে সংঘর্ষ বাধাতে উস্কানি দেওয়ার যে চেষ্টা করছে তার বিরুদ্ধে জোর তদারকি করে কঠোর ব্যবস্থা নিতে বৃহস্পতিবার সরকারের কাছে দাবি জানিয়েছেন বিরোধী বিধায়করা। অসম বিধানসভার চলতি বাজেট আধিবেশনে বৃহস্পতিবার এই দাবিটি উত্থাপন করা হয়। জিরো আওয়ারে ইস্যুটি উত্থাপন করে এআইইউডিএফ বিধায়ক আমিনুল ইসলাম সদনে জানান,তাঁর ধিং কেন্দ্ৰে থেকে থেকেই কিছু ঘটনা ঘটেছে যা অসমিয়া-মুসলিম জনগোষ্ঠীর মধ্যে সংঘর্ষের কারণ হয়ে দাঁড়াতে পারে। তিনি বলেন,ন্যস্ত স্বার্থান্বেষী গোষ্ঠী মুসলিমদের বিরূপ মন্তব্য করে  পরিস্থিতি তাতিয়ে তোলার সম্ভাবনা রয়েছে। ‘আমার কেন্দ্ৰে ছোটখাটো কিছু ঘটনা ঘটার রিপোর্ট পাওয়া গিয়েছে। তাই রাজ্য সরকার যদি সময়ে প্ৰতিরোধ মূলক ব্যবস্থা গ্ৰহণ না করে তাহলে সংঘর্ষ বাধতে বেশিক্ষণ লাগবে না’-বলেন ইসলাম।

অন্যদিকে,উত্তর করিমগঞ্জের কংগ্ৰেস বিধায়ক কমলাক্ষ দে পুরকায়স্থ বলেন,নাগরিকত্ব বিল বিরোধী চলতি আন্দোলনের সময়ে ন্যস্ত স্বার্থান্বেষী একটা গোষ্ঠী অসমিয়া ও বাঙালির মধ্যে সংঘর্ষ বাধাতে উস্কানি দিচ্ছে। তিনি বলেন,রাজ্যে সাম্প্ৰদায়িক বিষ ছড়াতে একটা গোষ্ঠী সোসিয়েল মিডয়াকেও ব্যবহার করছে। তাই আগে থেকেই এসব ঘটনা প্ৰতিরোধ করা না হলে এর বিপজ্জনক প্ৰভাব সমাজের বুকে ছড়িয়ে পড়তে পারে’-বলেন পুরকায়স্থ।

এব্যাপারে সাড়া দিয়ে সংসদ বিষয়ক মন্ত্ৰী চন্দ্ৰমোহন পাটোয়ারি বিধানসভায় আশ্বাস দিয়ে বলেন,সাম্প্ৰদায়িক সম্প্ৰীতি বিনষ্ট করতে কেউ আইনশৃঙ্খলা ভাঙার চেষ্টা করলে সরকার তা বরদাস্ত করবে না। তিনি বলেন,সোসিয়েল মিডিয়ার প্ৰতিও সরকার তীক্ষ্ণ নজর রাখছে। রাজ্যে বিভিন্ন শ্ৰেণির মানুষের মধ্যে যে শান্তি সম্প্ৰীতি বিরাজ করছে তাতে চিড় ধরানোর কোনও প্ৰয়াসের সঙ্গে সরকার আপস করবে না-সাফ জানিয়ে দেন পাটোয়ারি।