সংবাদ শিরোনাম

ফের ভারতকে আলোচনার প্ৰস্তাব পাক প্ৰধানমন্ত্ৰী ইমরান খানের

প্ৰধানমন্ত্ৰী ইমরান খান

ইসলামাবাদঃ পাকিস্তানের প্ৰধানমন্ত্ৰী ইমরান খান বুধবার ভারতের সঙ্গে আলোচনায় বসার প্ৰস্তাব দিয়েছেন। কাশ্মীরের পুলওয়ামায় ১৪ ফেব্ৰুয়ারি সিআরপিএফ কনভয়ে পাক মদতপুষ্ট জঙ্গি সংগঠন জইশ-ই-মহম্মদের আত্মঘাতী জঙ্গি আক্ৰমণে ৪০-এর বেশি জওয়ান শহিদ হন। এই ঘটনায় ভারত জুড়ে ক্ষোভ,উত্তেজনার পারদ চড়তে থাকে।

জঙ্গি আক্ৰমণের পাল্টা জবাব দিতে মরিয়া হয়ে ওঠে গোটা ভারত। পুলওয়ামার ঘটনার ১২ দিনের মাথায় ভারতীয় বায়ু সেনা মঙ্গলবার কাকভোরে এলওসি অতিক্ৰম করে পাকিস্তানের বালকোটে বোমা দিয়ে জইশের তিনটি ঘাঁটি উড়িয়ে দেয়। উভয় দেশের মধ্যেদেখা দেয় এক যুদ্ধংদেহি পরিবেশ। বিশেষ করে ভারতীয় বায়ুসেনার প্ৰত্যাঘারের পরিপ্ৰেক্ষিতে পাক প্ৰধানমন্ত্ৰী ইমরান খান উত্তেজনা প্ৰশমনে বুধবার ভারতকে ফের আলোচনার প্ৰস্তাব দেন। তিনি আশা করছেন ভারত শুভ বুদ্ধির সঙ্গে বিসয়টি বিবেচনা করবে। ভারতীয় বায়ুসেনা পাকিস্তানের একটি লড়াকু বিমানকে ধ্বংস করেছে। আকাশ মার্গে এই সংঘর্ষ চলাকালে ভারতের একটি মিগ-২১ বিমান নষ্ট হয়ে গেছে।

রিপোর্টে প্ৰকাশ এই মিগ বিমানের পাইলটকে পাকিস্তান আটক করেছে। স্বরাষ্ট্ৰমন্ত্ৰক ভারতীয় পাইলটের নিখোঁজ হওয়ার খবর স্বীকার করে নিয়েছে। বিদেশমন্ত্ৰকের মুখপাত্ৰ রবিশ কুমার গত কালই জানিয়েছেন পাকিস্তানের একটি এফ-১৬ বিমান ভূপতিত করার কথা। পাকিস্তান প্ৰথমে ঘোষণা করেছিল যে তারা দুটো ভারতীয় যুদ্ধ বিমানকে তাদের মাটিতে গুলি করে নামিয়েছে এবং বিমান দুটোর পাইলটকে গ্ৰেপ্তার করা ছাড়াও ভারতের সীমান্তে বোমাও ফেলেছে। পরে অবশ্য পাক সামরিক কর্তৃপক্ষ স্পষ্টীকরণ দিয়ে বলেছে,একজন ভারতীয় পাইলট তাদের কব্জায় রয়েছেন। এই পাইলটকে উইং কমান্ডার অভিনন্দন বর্তমান নামে শনাক্ত করা হয়েছে। ওই পাইলটের ভিডিও ক্লিপিংও প্ৰচার করেছে পাকিস্তান। ইউনিফর্ম পরা,চোখ বাঁধা এবং আহত অবস্থায় দেখা গেছে ওই পাইলটকে।

এমনই এক উত্তপ্ত পরিস্থিতির মধ্যে পাক প্ৰধানমন্ত্ৰী খান ভারতের সঙ্গে আলোচনার প্ৰস্তাব দিয়ে বলেন,পুলওয়ামায় জঙ্গি হামলায় অনেক প্ৰাণহানি হয়েছে আমরা সে ব্যাপারে ভারতের শোক অনুধাবন করতে পারছি। পাকিস্তান শান্তি চায়। তাই পুলওয়ামার ঘটনার তদন্তে ভারতকে সহযোগিতা করারও আশ্বাস দেন পাক প্ৰধানমন্ত্ৰী।

ইমরান আরও বলেছেন,যুদ্ধ কোনও অবস্থাতেই কাম্য হতে পারে না। তিনি বলেন,যারা লড়াই করেছে তাদের দুর্দশার মুখে পড়তে হয়েছে। যুদ্ধ একবার শুরু হলে তা কোথায় গিয়ে শেষ হবে তা কেউ বলতে পারবে না। তিনি বলেন,‘ইতিহাসে আজ অবধি যত যুদ্ধ হয়েছে সবটাই ভুল সিদ্ধান্তের জন্য। জঙ্গি কার্যকলাপের বিরুদ্ধে আমরা ভারতকে সব ধরনের সহযোগিতায় রাজি। তবে তার জন্য ভারতকে আলোচনায় এগিয়ে আসতে হবে। আমি ভারতের সঙ্গে সহযোগিতা করতে চাই আর সেজন্যই অগ্ৰাসনের বিরুদ্ধে ভারতকে সতর্ক করে দিয়েছি’। ইমরানের ভাষায় ‘আমি ভারতের কাছে এই প্ৰশ্ন রাখতে চাই যে সব অস্ত্ৰ ভান্ডার আমাদের উভয় দেশের হাতে রয়েছে,সেই সব অস্ত্ৰ নিয়ে একটা ভুল সিদ্ধান্ত নেওয়ার জন্য আখেরে আমরা কতটা প্ৰস্তুত। যুদ্ধের পরিবর্তে আলোচনায় সমস্যা মেটানোরই পক্ষপাতী পাকিস্তান-বলেন খান।