Begin typing your search above and press return to search.

মেঘালয়ের খনিতে উচ্চক্ষমতার পাম্প নিয়ে গেল বিশালাকার সামরিক বিমান

মেঘালয়ের  খনিতে উচ্চক্ষমতার পাম্প নিয়ে গেল বিশালাকার সামরিক বিমান

Sentinel Digital DeskBy : Sentinel Digital Desk

  |  28 Dec 2018 9:13 AM GMT

ভারতীয় বায়ুসেনার একটি বিশালাকার বিমানে উচ্চক্ষমতাসম্পন্ন পাম্প উড়িয়ে নিয়ে যাওয়া হল মেঘালয়ের জয়ন্তিয়ায়। সেখানে গত ১৫ দিন ধরে খনির ভিতর আটকে পড়েছেন ১৫ জন শ্রমিক। এত দিন পর্যন্ত যে ধরনের পাম্প দিয়ে ওই খনি থেকে জল নিষ্কাশনের কাজ চলছিল, তা মোটেই পর্যাপ্ত ছিল না।

শুক্রবার ওড়িশা থেকে উচ্চক্ষমতার পাম্প বহন করার জন্য ব্যবহৃত হল এই বিশালাকার সামরিক বিমান।গত ১৩ ডিসেম্বর রাতে মেঘালয়ের পূর্ব জয়ন্তিয়া জেলার কসন গ্রামে জঙ্গলের ভিতরে অবস্থিত একটি বেআইনি কয়লা খাদানে (যেগুলিকে র‍্যাট হোল মাইনিং বলা হয়) নেমেছিলেন ওই শ্রমিকরা। ওই খাদানের পাশ দিয়েই বইছে লিটিয়েন নদী। কিন্তু ওই খাদানের ভিতরে থাকা ১৫ শ্রমিকের জীবন নিয়ে টানাটানি চলছে এখনও। মূলত উদ্ধার কাজের জন্য প্রয়োজনীয় সরঞ্জামের অভাবের কারণেই মৃত্যুুর মুখ থেকে তাঁদের উদ্ধার করা সম্ভব হচ্ছিল না।ন্যাশনাল ডিজাস্টার রেসপন্স ফোর্স (এনডিআরএফ)-এর তরফে জানানো হয়, ওই খনিতে জল নিষ্কাশনে যে ধরনের পাম্প তারা ব্যবহার করছিল, তা মোটেই কার্যকরী নয়। এমনিতে গভীর কয়লা খাদান তার উপর পাশ দিয়ে বয়ে গিয়েছে নদী। এর পরই ভারী যন্ত্রাংশ নির্মাণকারী এক ভারতীয় সংস্থা থাইল্যান্ড থেকে নিয়ে এসেছে উচ্চক্ষমতাসম্পন্ন পাম্প। যার সাহায্যে ওই খনি থেকে জল বের করে চলছে উদ্ধারকাজ।

উল্লেখ্য, উদ্ধারকারী দলের তরফে আগেই জানানো হয়েছিল, গত দুই সপ্তাহ ধরে যে পাম্প দিয়ে জল নিষ্কাশনের কাজ চলছিল, তা পর্যাপ্ত নয়। ওই খনি থেকে জল বের করতে ১০০ হর্স পাওয়ারের পাম্পের প্রয়োজন। প্রথম থেকেই বলা হয়ে আসছে, “বেআইনিভাবে চলা এই খাদানটির ২৫০ ফুট নীচ থেকে জলে ভর্তি হয়ে গেছে। জলস্তর রয়েছে আরও প্রায় ৭০ মিটার।”

Next Story