Begin typing your search above and press return to search.

রাজেন গোহাইর বিরুদ্ধে যৌন কেলেংকারির অভি্যোগ নিয়ে উত্তাল নগাঁওয়ের দেউরি গাঁও

রাজেন গোহাইর বিরুদ্ধে যৌন কেলেংকারির অভি্যোগ নিয়ে উত্তাল নগাঁওয়ের দেউরি গাঁও

Sentinel Digital DeskBy : Sentinel Digital Desk

  |  1 Nov 2018 1:26 PM GMT

রেল প্ৰতিমন্ত্ৰী রাজেন গোঁহাইর বিরুদ্ধে মাস দুয়েক আগে উত্থাপিত যৌন কেলেংকারির অভিযোগ নিয়ে নগাঁওয়ের একটি গ্ৰামে ব্যাপক উত্তেজনার সৃষ্টি হয়েছে। যে অল্পবয়সী গৃহবধূটি মন্ত্ৰীর বিরুদ্ধে যৌন নির্যাতনের অভিযোগ এনে নগাঁও সদর থানায় এজাহার দাখিল করেছিলেন,সেই মহিলার স্বামীর বাড়ি নগাঁও জেলার দক্ষিণপাট তুলসীমুখ দেউরি গ্ৰামে।ওই গ্ৰামের প্ৰত্যেক মানুষ গতকাল পথে নেমে অভিযোগকারিণী মহিলার বিরুদ্ধে প্ৰতিবাদে সোচ্চার হয়ে ওঠেন। বুধবার রাতে গ্ৰামের একাংশ পুরুষ-মহিলা অভিযোগকারিণী মহিলার স্বামীর ঘরে ঢিল ছুড়ে আক্ৰমণ করার পাশাপাশি দেহ ব্যবসা ও ব্ল্যাকমেলিং বন্ধ করে গ্ৰামের সম্মান অক্ষুণ্ণ রাখার দাবি জানান। এলাকায় প্ৰায় ঘণ্টা দুই টানটান উত্তেজনার পর সব মানুষ নিজের নিজের বাড়িতে ফিরে যান। আজ আবার দেউরি গ্ৰামের মানুষ ও সচেতন ব্যক্তিরা একজোট হয়ে ওই মহিলার স্বামীর বাড়ির সামনে ধরনা দিয়ে পরিস্থিতি সরগরম করে তোলেন।

উত্তেজিত লোকেরা দেহ ব্যবসা বন্ধ করুন,রাজেন গোঁহাই মুর্দাবাদ ইত্যাদি ধ্বনি দিয়ে তাতিয়ে তোলেন পরিবেশ। এরপর এক জনসভাও অনুষ্ঠিত হয়। সভায় উল্লিখিত মহিলার পরিবারকে সামাজিকভাবে বয়কট করার পাশাপাশি আগামি দশদিনের মধ্যে মহিলার স্বামীকে ওই বাড়ি ছাড়ার আহ্বান জানান। গ্ৰামের মানুষ রাজপথে মিছিল বের করে ওই মহিলার পরিবার ও মন্ত্ৰী গোঁহাইর বিরুদ্ধে প্ৰতিবাদ ধ্বনি দেন। এরপরও মহিলার স্বামী যদি ওই বাড়ি না ছাড়েন তাহলে স্থানীয় মানুষ তাদের সিদ্ধান্ত কার্যকরী করার জন্য জেলাশাসক ও পুলিশ সুপারকে ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি জানানোর সিদ্ধান্ত নেন।

অপ্ৰীতিকর পরিস্থিতির সম্ভাবনা দেখে প্ৰশাসন আজ সকালে ওই মহিলার স্বামীর বাড়ির পাশে পুলিশ মোতায়েন করেছে। পুলিশ উপস্থিত থাকায় কোনও ঘটনা ঘটেনি। স্থানীয় লোকেরা সংবাদ মাধ্যমের কাছে অভিযোগ করেন এই ঘটনা দেউরি গ্ৰামবাসীকে লজ্জানত করেছে। ওই মহিলার ঘরে আগে থেকেই দেহ ব্যবসা চলার অভিযোগ রয়েছে বলে গ্ৰামবাসীরা উল্লেখ করেছেন।

উল্লেখ্য,মহিলাটি দুমাস আগে গোঁহাইর বিরুদ্ধে যৌন নির্যাতনের অভিযোগ তুলে থানায় এফআইআর দাখিল করায় জোর প্ৰতিক্ৰিয়ার সৃষ্টি হয়েছিল। পরবর্তী সময়ে মহিলাটি তার অভিযোগ ভুল বোঝাবুঝি বলে আদালতে লিখিত বয়ান দিয়েছিলেন। এমনকি মহিলার স্বামী অভি্যোগ অস্বীকার করে ভিডিও পোস্টও করেছিলেন। মন্ত্ৰীর বিরুদ্ধে যৌন কেলেংকারির অভিযোগ থিথিয়ে আসার পর দুদিন আগে মহিলার স্বামী ফের ঘটনাটি বিতর্কের কেন্দ্ৰবিন্দুতে নিয়ে আসেন। মহিলার স্বামী সংবাদ মাধ্যমকে আরও বলেছেন তাকে ভয় দেখিয়ে মামলা তুলে নিতে বাধ্য করা হয়েছিল। গতকাল সংবাদ মাধ্যমে এই খবর চাউর হওয়ার পর গ্ৰামের মানুষ বেরিয়ে এসে ওই মহিলার বাড়ির সামনে ধরনা দেওয়া ছাড়াও বাড়িটিরও কিছু ক্ষতি সাধন করেন।

Next Story