সংবাদ শিরোনাম

রাজ্যের ১৪টি লোকসভা আসনে জয় আশা করছে অগপ-বিজেপি জোট

অগপ-বিজেপি জোট

গুয়াহাটিঃ নাগরিকত্ব(সংশোধনী)বিলের প্ৰতিবাদে অসম গণ পরিষদ দল(অগপ)মাস কয়েক আগে রাজ্যের বিজেপি জোট সরকারের সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন করে বেরিয়ে এসেছিল। কিন্তু এখন লোকসভা ভোটের মুখে অগপ ফের রাজ্যের শাসক দল বিজেপি-র সঙ্গে জোটে ফিরে এসেছে। রাজ্য বিজেপি সভাপতি রঞ্জিৎ দাস দলীয় কর্মী ও শুভানুধ্যায়ীদের লোকসভা নির্বাচনে নিজেদের ভোটাধিকার প্ৰয়োগকালে অগপ-বিজেপির মধ্যে কোনও ফারাক না আনার আবেদন জানান। একইভাবে অগপ সভাপতি অতুল বরা দলীয় কর্মী ও সমর্থকদের অগপ ভোট তাদের শরিক দলকে হস্তান্তর করার বিষয়টি সুনিশ্চিত করার আবেদন জানান। উভয় দলেরই লক্ষ্য হচ্ছে অসম তথা দেশকে কংগ্ৰেস মুক্ত করা এবং সেইসঙ্গে প্ৰধানমন্ত্ৰী নরেন্দ্ৰ মোদিকে দ্বিতীয়বারের জন্য দিল্লির মসনদে অধিষ্ঠিত করা।

উভয় দলের মধ্যে ফের জোট হওয়ার পর বিজেপি-র রাজ্য নেতারা বৃহস্পতিবার সৌজন্যমূলক সাক্ষাৎকারের জন্য গুয়াহাটির অগপ কার্যালয়ে গিয়ে হাজির হন। এরপরই অগপ সভাপতি অতুল বরা,কার্যনির্বাহী সভাপতি কেশব মহন্ত এবং বরিষ্ঠ নেতা ফণীভূষণ চৌধুরী ও অন্যান্যরা শুক্ৰবার গুয়াহাটিতে বিজেপির সদর কার্যালয় পরিদর্শনে যান। উভয় দলের মধ্যে এক যৌথ বৈঠকের পর রাজ্য বিজেপির সভাপতি রঞ্জিৎ দাস সাংবাদিকদের বলেন,সব শুভাকাঙ্খীরা আমাদের জোটের প্ৰশংসাই করেছেন। এখন আমরা একযোগে লোকসভার নির্বাচনে লড়তে যাচ্ছি। আমাদের জোটে রয়েছে বিপিএফও’। তাছাড়া সম্মিলিত গণশক্তি,রাভা যৌথ সংগ্ৰাম সমিতি এবং তিওয়া জাতীয় ঐক্য মঞ্চ আমাদের সঙ্গে রয়েছে। এটা একটা রামধনু সদৃশ জোট। ‘আমাদের লক্ষ্য হচ্ছে ভারতকে সুপার পাওয়ার হিসেবে প্ৰতিষ্ঠিত করা এবং সেই সঙ্গে প্ৰধানমন্ত্ৰী নরেন্দ্ৰ মোদিকে দ্বিতীয় বারের জন্য দিল্লির দরবারে বসানো’।

দাস আরও বলেন,আগে আমরা আশা করেছিলাম লোকসভার নির্বাচনে ৯-১১টি আসন আমাদের ঝুলিতে আসবে। কিন্তু অগপ জোটে ফিরে আসায় আমরা চেষ্টা করছি রাজ্যের ১৪টি আসনে জয় ছিনিয়ে নিতে। আমি ২৯ লক্ষ বেজেপি কর্মীর প্ৰতি অনুরোধ জানাচ্ছি তারা যেন অগপ-বিজেপি,বিপিএফ প্ৰার্থীদের নিয়ে কোনওরকম ফারাক সৃষ্টির চেষ্টা না করেন।

‘আমরা ২০১৬র বিধানসভা নির্বাচনে জোটবদ্ধভাবে লড়ে বিরাট সাফল্য পেয়েছি। এবার আমরা একজো্ট হয়ে লোকসভা নির্বাচনে লড়ছি’।

এদিন অগপ সভাপতি অতুল বরা সাংবাদিকদের বলেন,আমাদের জোট নতুন কিছু নয়। এরআগে ২০০১,২০০৯ এবং ২০১৬-তেও আমাদের মধ্যে জোট হয়েছিল। এবার লোকসভা নির্বাচনের মুখে আমরা আবার জোটবদ্ধ হয়েছি আমাদের প্ৰধান শত্ৰু কংগ্ৰেসকে কুপোকাৎ করতে। অসমকে কংগ্ৰেস মুক্ত করতেই অগপর জন্ম হয়েছে। গত কয়েক মাস কিছু ইস্যুর ভিত্তিতে বিজেপির সঙ্গে আমাদের মতানৈক্য হয়েছিল। তবে সেগুলি আলোচনায় বসে মিটিয়ে নেওয়া যাবে। আমাদের অভিন্ন লক্ষ্য কংগ্ৰেসকে হারানো। সেইসঙ্গে মোদিকে ফের প্ৰধানমন্ত্ৰী করা।

‘মোদি প্ৰধানমন্ত্ৰী হওয়ার পর উত্তর পূর্বাঞ্চল এবং ভারত প্ৰগতির পথে এগিয়ে চলেছে। তাঁর আগের প্ৰধানমন্ত্ৰী মনমোহন সিং অসম থেকে নির্বাচিত হয়েও রাজ্যের বিকাশে কোনও ছাপই রাখতে পারেননি’।

যৌথ সভায় নেডার আহ্বায়ক তথা রাজ্যের অর্থমন্ত্ৰী হিমন্তবিশ্ব শর্মাও উপস্থিত ছিলেন।