সংবাদ শিরোনাম

শান্তি ও উন্নয়নের স্বর্গরাজ্য হয়ে উঠেছে বিটিসিঃ সোনোয়াল

সোনোয়াল

কোকরাঝাড়ঃ মুখ্যমন্ত্ৰী সর্বানন্দ সোনোয়াল রবিবার কোকরাঝাড়ে ১৭তম বোড়োল্যান্ড দিবসে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে শহিদের পরিবারের হাতে আর্থিক সাহায্য হিসেবে ৫ লক্ষ টাকার চেক তুলে দেন। স্বশাসনের দাবিতে আত্মাহুতি দিয়ে শহিদ হয়েছিলেন ওই কুড়িজন। তাঁদের ওই মহান ত্যাগের প্ৰতি শ্ৰদ্ধা জানাতেই এদিনের সভা আয়োজন করা হয়েছিল। শহিদদের প্ৰতি স্বীকৃতি জানাতে মোট ২৬২৪টি শহিদ পরিবারের প্ৰত্যেককে ৫ লক্ষ টাকার চেক দেওয়া হবে রাজ্য সরকারের তরফ থেকে। শহিদদের এই আত্মত্যাগের পর ২০০৩ সালে কেন্দ্ৰ,অসম সরকার ও বোড়ো লিবারেশন টাইগারের মধ্যে বোড়ো চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়েছিল। অনুষ্ঠানে ভাষণ দিয়ে গিয়ে মুখ্যমন্ত্ৰী সোনোয়াল দিনটিকে ঐতিহাসিক আখ্যা দেন। এদিন তিনি উপেন ব্ৰহ্ম ও অন্যান্য শহিদদের প্ৰতিও শ্ৰদ্ধা জানান।

সোনোয়াল বলেন,কোকরাঝাড় এবং অন্যান্য কিছু এলাকাকে এক সময়ে উপদ্ৰুত অঞ্চল বলে বিবেচনা করা হতো। কিন্তু এখন ওই সব এলাকা শান্তি ও উন্নয়নের স্বর্গরাজ্যে পরিণত হয়েছে। ২০০৩ সাল থেকে বিটিএডি অঞ্চলে উন্নতি ও উন্নয়নের অভূতপূর্ব জোয়ার এসেছে। বিটিএডি-র চার জেলার বিভিন্ন স্থানে মেডিক্যাল কলেজ,ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজ,সৈনিক স্কুল,স্পোর্টস কলেজ ও ফরেস্ট কলেজের শিলান্যাস উন্নয়নেরই নজির-বলেন তিনি। বিটিসির বিভিন্ন এলাকায় বিভিন্ন জাতপাত,ধর্ম,সম্প্ৰদায়ের স্বার্থেই পরিকাঠামোগত ব্যবস্থার উন্নয়ন ত্বরান্বিত করা হচ্ছে।

নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল ২০১৯ এবং ছয় জনগোষ্ঠীকে উপজাতির মর্যাদা দেওয়া সম্পর্কে মুখ্যমন্ত্ৰী বলেন,কিছু ন্যস্ত স্বার্থান্বেষী তাদের নিজস্ব স্বার্থসিদ্ধির জন্য এই ইস্যুগুলি নিয়ে ভুল খবর ছড়াচ্ছে। বলেন,বর্তমানে যারা উপজাতির মর্যাদা ভোগ করছেন তাদের অধিকার ও সু্যোগ সুবিধা অক্ষুণ্ণ রেখেই  ছয় জনগোষ্ঠীকে উপজাতির মর্যাদা দেওয়া হবে। সোনোয়াল আরও বলেন,খিলঞ্জিয়া মানুষের স্বার্থে রাজ্যের ভূমিপুত্ৰদের ভাষা সংস্কৃতি,শিক্ষা,পরম্পরা রক্ষায়ও বাজেটে বিশেষ গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে। এই উদ্দেশ্যে বিভিন্ন খাতে বরাদ্দও ধার্য করেছে সরকার। রাজ্য সরকারের উন্নয়নমূলক পদক্ষেপ সম্পর্কে সোনোয়াল বলেন,রাজ্যে বিনিয়োগ শীর্ষ সম্মেলনে ৭৯০০০ কোটি টাকা বিনিয়োগের প্ৰস্তাব এসেছে।

বিটিএডিতে শান্তির বাতাবরণ গড়ে তোলার জন্য তিনি বিটিসি প্ৰধান হাগ্ৰামা মহিলারি ও তাঁর সহযোগীদের ধন্যবাদ জানান। বিটিএডি-র শান্তিপূর্ণ পরিবেশের জন্য রাজ্যে উন্নয়নের গতিও ত্বরান্বিত হচ্ছে। বিটিএডি এলাকার সার্বিক বিকাশ ও উন্নয়নের জন্য উপেন ব্ৰহ্ম যে অবদান রেখেছেন তার জন্য রাজ্য সরকারের তরফে তাঁকে পুরস্কৃত করার ব্যবস্থা করা হবে-উল্লেখ করেন মুখ্যমন্ত্ৰী।

অনুষ্ঠানে ভাষণ দিতে গিয়ে বিটিসি প্ৰধান হাগ্ৰামা মহিলারি বিটিসি চুক্তি স্বাক্ষরে সহায়তা করার জন্য জনগণ ও বিভিন্ন সংগঠনকে ধন্যবাদ জানান,যার দরুন বিটিএডি এলাকায় উন্নয়নে জোয়ার আনা সম্ভব হয়েছে। হাগ্ৰামা বলেন,বিটিএডি এলাকায় বসবাসকারী প্ৰত্যেক শ্ৰেণির মানুষের উন্নয়নে বিটিসি প্ৰতিশ্ৰুতিবদ্ধ।

মুখ্যমন্ত্ৰী এদিন জামিল কুমার ব্ৰহ্মকে প্ৰমোদ চন্দ্ৰ ব্ৰহ্ম সাহিত্য পুরস্কার এবং সুলেখা বসুমতারিকে নীলেশ্বর ব্ৰহ্ম পুরস্কার দিয়ে সম্মানিত করেন। তিরন্দাজ পল্লবী বোড়োর হাতে তুলে দেওয়া হয় এক্সেল্যান্স অফ স্পোর্টস অ্যাওয়ার্ড। সমাজকল্যাণ মন্ত্ৰী প্ৰমীলা রানি ব্ৰহ্ম,পর্যটন মন্ত্ৰী চন্দন ব্ৰহ্ম,জনস্বাস্থ্য কারিগরি মন্ত্ৰী রিহন দৈমারি,সাংসদ বিশ্বজিৎ দৈমারি সহ বেশকজন গণ্যমান্য ব্যক্তি অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।