সংবাদ শিরোনাম

পরীক্ষা শেষ হবার পরই রাজ্যে ফের ক্যা বিরোধী আন্দোলন জোরদার করে তুলবে আসু

আসু

গুয়াহাটিঃ সারা অসম ছাত্ৰ সংস্থা(আসু)শুক্ৰবার ঘোষণা করেছে আগামি মাসে স্কুল,কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ের পরীক্ষাগুলো শেষ হবার পরপরই নাগরিকত্ব সংশোধনী আইনের(ক্যা)বিরুদ্ধে তারা ফের গোটা রাজ্যে আন্দোলন জোরদার করে তুলবে। বৃহস্পতি ও শুক্ৰবার গুয়াহাটিতে আসুর কর্মসমিতি ও প্ৰতিনিধি সভার বৈঠকে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

আসুর মুখ্য উপদেষ্টা সমুজ্জ্বল ভট্টাচার্য দ্য সেন্টিনেলকে বলেছেন,ক্যা বিরোধী আন্দোলন আরও জোরদার করে তোলা হবে। রাজ্যের গ্ৰামগঞ্জ,পাহাড়ি এলাকা এবং অন্যত্ৰ গোছালো ভাবে চালানো হবে এই আন্দোলন। তিনি আরও বলেন,রাজ্যে পরীক্ষার পরিবেশ যাতে কোনওভাবে বিঘ্নিত না হয় তার জন্য আন্দোলন কর্মসূচিতে আসু আপাতত ঢিলে দিয়েছে। তবে ক্যা বিরোধী আন্দোলন এখনও অব্যাহত আছে। তিনি বলেন,শনিবার ডিব্ৰুগড়ে ক্যা-বিরোধী একটি সমাবেশ অনুষ্ঠিত হবে।

ড.ভট্টাচার্য বলেন,আসু,৩০টি জাতীয় সংগঠন,এজেওয়াইসিপি(অজাযুছাপ)এবং শিল্পী সমাজ আন্দোলন চালিয়ে যেতে একযোগে কাজ করছে। তিনি বলেন,ঐতিহাসিক অসম আন্দোলনে জড়িত বিশেষ করে এসএকেপি,কেন্দ্ৰীয় ও অর্ধ কেন্দ্ৰীয় কর্মচারী সংস্থা,অসম সাহিত্যসভা এবং অসম আইনজীবী সংস্থাকে একই সঙ্গে যৌথ আন্দোলনে শামিল করার বিষয়টি নিয়ে চিন্তাচর্চা করছে আসু।

‘ক্যা বিরোধী সমস্ত সংগঠনকে এককাট্টা করতে এবং তাদের মধ্যে সহযোগিতা গড়ে তোলার জন্য একটা মঞ্চ গড়ে তোলার প্ৰয়োজন রয়েছে,যারা আসুর আদর্শের সঙ্গে তাল মিলিয়ে আন্দোলন দুর্বার করে তুলবে’-উল্লেখ করেন তিনি। ভট্টাচার্য আরও বলেন,ভবিষ্যতে ক্যা বিরোধী আন্দোলনকে এগিয়ে নেওয়ার জন্য বিভিন্ন কর্মসূচি সম্পর্কে সিদ্ধান্ত নিতে আসু একটা জাতীয় অভিবর্তন আয়োজনের পরিকল্পনা করছে। তবে প্ৰস্তাবিত এই অভিবর্তনের ব্যাপারে অন্যান্য সংগঠনগুলির সঙ্গে বিশেষ করে এই আন্দোলনে যারা আসুর পাশে রয়েছে তাদের সঙ্গে শলাপরামর্শ করেই পাকাপাকি সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। রাজ্যে একটা অর্থনৈতিক আন্দোলনের সুপারিশ করে আসুর মুখ্য উপদেষ্টা সতর্ক করে দিয়ে বলেন,ক্যা বিরোধী আন্দোলন চাপা দিতে ছাত্ৰ ইউনিয়নের কর্মীদের ওপর নির্যাতন রাজ্য সরকারকে বন্ধ করতেই হবে।

অসমে ইনারলাইন পারমিট(আইএলপি)চালু করা সম্পর্কে ভট্টাচার্য বলেন,আসু এবং নেসো(এনইএসও)এই দাবি উত্থাপন করেছে। ‘এই দাবি যেহেতু ইতিমধ্যেই পেশ করা হয়েছে সেইহেতু আসুর কর্মসমিতি ও প্ৰতিনিধি সভা আইএলপি নিয়ে পৃথকভাবে কোনও প্ৰস্তাব করেনি’-বলেন তিনি।

প্ৰস্তাবিত ওই সম্মেলনে রাজ্যে নতুন কোনও রাজনৈতিক দলের জন্ম দেবে কিনা জানতে চাওয়া হলে আসুর সাধারণ সম্পাদক লুরিনজ্যোতি গগৈ বলেন,রাজ্যের জনগণের সুপারিশ মেনেই আসু এগোবে। ভবিষ্যতে অসমের খিলঞ্জিয়া মানুষের রক্ষাকবচের ব্যাপারে একটা ব্লুপ্ৰিন্ট প্ৰস্তুত করাই প্ৰস্তাবিত সম্মেলনের উদ্দেশ্য। গগৈ বলেন,১৫ মার্চ থেকে ক্যা বিরোধী আন্দোলন জোরদার করে তোলা হবে এবং তা চলবে রঙালি বিহু অবধি।

 

অন্যান্য খবরের জন্য পড়ুনঃ দিল্লির ভাই-বোনদের শান্তি ও ভ্ৰাতৃত্ব বজায় রাখার আহ্বান প্ৰধানমন্ত্ৰী মোদির

অধিক খবরের জন্য ভিডিও দেখুন: Leopard attack victim yet to get compensation from Forest Department in Dibrugarh’s Moran