Top
Begin typing your search above and press return to search.

নিম্ন সুবনশিরি বাঁধ নির্মাণের প্ৰতিবাদে অজাযুছাপের ধরনা লখিমপুরে

নিম্ন সুবনশিরি বাঁধ নির্মাণের প্ৰতিবাদে অজাযুছাপের ধরনা লখিমপুরে

Sentinel Digital DeskBy : Sentinel Digital Desk

  |  11 Jun 2019 12:34 PM GMT

লখিমপুরঃ অসম জাতীয়তাবাদী যুব ছাত্ৰ পরিষদের(অজাযুছাপ)লখিমপুর জেলা শাখা এনএইচপিসি এবং বৃহৎ বাঁধ নির্মাণের বিরুদ্ধে সোমবার লখিমপুরে গণতান্ত্ৰিক পদ্ধতিতে অবস্থান ধর্মঘট পালন করে।

সংগঠনের কেন্দ্ৰীয় কমিটির সিদ্ধান্ত অনু্যায়ী অজাযুছাপের লখিমপুর জেলা শাখার কর্মীরা গেরুকামুখে নির্মীয়মাণ নিম্ন সুবনশিরি জলবিদ্যুৎ প্ৰকল্প বন্ধ করার দাবিতে লখিমপুর জেলাশাসকের কার্যালয়ের সামনে তিন ঘণ্টা অবস্থান ধর্মঘট পালন করেন।

ধেমাজি-অরুণাচল প্ৰদেশের সীমান্ত এলাকায় রয়েছে গেরুকামুখ। সংগঠনটি গত ৬ জুন লখিমপুরে অরুণাচল প্ৰদেশের রাজ্যপাল ব্ৰিগেডিয়ার(অবসরপ্ৰাপ্ত)ড.বিডি মিশ্ৰর কুশপুতুলও দাহ করে বিতর্কিত বাঁধ নির্মাণে তাঁর সমর্থন দেওয়ার প্ৰতিবাদে।

বিভিন্ন সংগঠন এবং মানুষের বাঁধ বিরোধী আন্দোলনের জন্য ২০১১ সালের ডিসেম্বর থেকে সুবনশিরি জলবিদ্যুৎ সংক্ৰান্ত বৃহৎ বাঁধটির নির্মাণ কাজ বন্ধ রয়েছে। এই বাঁধ নির্মাণের বিষয়টি ন্যাশনাল গ্ৰিন ট্ৰাইবুনালেও বিচারাধীন রয়েছে। প্ৰতিবাদ সাব্যস্ত করে যুব ছাত্ৰ পরিষদের পক্ষ থেকে প্ৰকল্পটি বন্ধ করার জন্য ব্যবস্থা গ্ৰহণের দাবি জানিয়ে প্ৰধানমন্ত্ৰীর উদ্দেশে একটি স্মারকপত্ৰ দাখিল করা হয়। ওই স্মারকপত্ৰে সংগঠনটি বলেছে,জলবিদ্যুৎ উৎপাদনকারী নিগম(এনএইচপিসি)নিম্ন সুবনশিরি জলবিদ্যুৎ প্ৰকল্পের(এলএসএইচপিসি)কাজ সম্পূর্ণ করতে চেষ্টায় কোনও ত্ৰুটি রাখেনি। কোর্টের নির্দেশ এবং আন্দোলনকারী বিভিন্ন সংস্থার সুপারিশ অগ্ৰাহ্য করে তারা এই প্ৰকল্পের কাজ সম্পূর্ণ করতে চেয়েছিল। স্মারকপত্ৰে সংগঠনটি এই প্ৰকল্পটি সম্পর্কে প্ৰধানমন্ত্ৰীকে তাঁর অবস্থান স্মরণ করিয়ে দিয়েছে। ২০১৪ সালে ধেমাজি জেলার গোগামুখে নির্বাচনী প্ৰচার সভায় এই প্ৰকল্পটির কাজ বন্ধ করা সম্পর্কে প্ৰধানমন্ত্ৰী তাঁর অবস্থানের কথা উল্লেখ করেছিলেন। সংগঠনটি প্ৰধানমন্ত্ৰীকে নির্বাচনী প্ৰতিশ্ৰুতি পালন করার জন্য অনুরোধ জানানোর পাশাপাশি এনএইচপিসি-র বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্ৰহণ করার দাবি জানিয়েছে। স্মারকলিপিতে সংগঠনটি বলেছে,তারা উন্নয়নের বিরোধী নয়। তাদের মতে,এই বাঁধ হলে লখিমপুর,ধেমাজি,মাজুলি ও বিশ্বনাথের মানুষের জীবনে ধ্বংস নেমে আসবে এবং এটা তারা কিছুতেই মেনে নেবেন না। ‘আমাদের অবস্থান একেবারেই পরিষ্কার,শেষ রক্তবিন্দু থাকতে এই নিম্ন সুবনশিরি বাঁধ আমরা হতে দেবো না’-উল্লেখ করা হয়েছে স্মারকপত্ৰে।

Next Story