Top
Begin typing your search above and press return to search.

ডেকারগাঁও-ডিব্ৰুগড় ইন্টারসিটি এক্সপ্ৰেস ট্ৰেনের যাত্ৰা শুরু

ডেকারগাঁও-ডিব্ৰুগড় ইন্টারসিটি এক্সপ্ৰেস ট্ৰেনের যাত্ৰা শুরু

Sentinel Digital DeskBy : Sentinel Digital Desk

  |  20 Aug 2019 9:52 AM GMT

তেজপুরঃ উত্তরপূর্ব সীমান্ত রেলের বরিষ্ঠ কর্মকর্তা সন্তোষ কুমার শর্মা সোমবার ডেকারগাঁওয়ে নতুন ডেকারগাঁও-ডিব্ৰুগড় ইন্টারসিটি এক্সপ্ৰেসের ফ্ল্যাগ অফ করেন।

প্ৰাপ্ত রিপোর্ট অনু্যায়ী এই বিশেষ ইন্টারসিটি এক্সপ্ৰেসটি বগিবিল সেতু হয়ে তেজপুর থেকে ডিব্ৰুগড়ের মধ্যে সংযোগ স্থাপন করবে। ডেকারগাঁও(তেজপুর)-ডিব্ৰুগড় ইন্টারসিটি এক্সপ্ৰেস ট্ৰেনটির যাত্ৰা শুরুর প্ৰথম দিনই যাত্ৰী সাধারণকে ব্যাপক উৎসাহের সঙ্গে সাড়া দিতে দেখা গেছে। ট্ৰেনের ইউটিএস ক্লাসে ১০০ শতাংশ টিকিট বুক করেছেন যাত্ৰীরা। ট্ৰেনটি চালু হওয়ায় অঞ্চলটির মানুষের দীর্ঘদিনের চাহিদা পূরণ হলো বলে যাত্ৰীরা দাবি করেছেন।

নতুন ইন্টারসিটি সপ্তাহের প্ৰতিদিনই চলাচল করবে। এখানে উল্লেখ করা যেতে পারে ডেকারগাঁও(তেজপুর)থেকে ডিব্ৰুগড় গামী ইন্টারসিটি ট্ৰেনটি রাঙাপাড়া উত্তর,বালিপাড়া,বিশ্বনাথ চারালি,হেলেম,সাহপুর,তাঁতিবাহার,হারমতি,উত্তর লখিমপুর,গোগামুখ,ধেমাজি,নিউ চিবরগাঁও,টঙানি এবং ধামালগাঁও রেল স্টেশন হয়ে চলবে।

ট্ৰেনটিতে থাকছে চারটি সাধারণ সেকেন্ড ক্লাস কোচ,৫টি সেকেন্ড ক্লাস ডে কোচ এবং ১১টি এসএলআর কোচ। উল্লেখ করা যেতে পারে ডেকারগাঁও-ডিব্ৰুগড় ইন্টারসিটি বিশেষ এক্সপ্ৰেস ট্ৰেনটি ছমাস সময় পরীক্ষামূলক ভিত্তিতে চালানো হবে।

ইন্টারসিটি এক্সপ্ৰেস ভারতে এমন একটা ট্ৰেন সেবা যা প্ৰধান রেলওয়ে জংশন ও রাজ্যের রাজধানীর সঙ্গে সংযোগ স্থাপন করে থাকে। এধরনের ট্ৰেনগুলো দূরপাল্লার অসুরক্ষিত সুবারবেন ট্ৰেনের ভূমিকা পালন করে এবং এতে বসে যাওয়ার ব্যবস্থা রয়েছে। ট্ৰেনগুলি দ্ৰুত চলাচল করে এবং স্বল্প দূরত্বে গড়ে একটা উচ্চ গতি বজায় রেখে চলে।

১৯০৬ সালে ভারতের এক রাজ্য থেকে অন্যান্য রাজ্যের শহরের মধ্যে সংযোগ গড়ে তুলতে ফ্লাইং রানি নামে প্ৰথম ইন্টারসিটি ট্ৰেন চালু করা হয়েছিল। প্ৰথম ইন্টারসিটি ট্ৰেন ফ্লাইং রানি সুরাট স্টেশন থেকে মুম্বই সেন্ট্ৰাল স্টেশন অবধি চালু করা হয়েছিল। এই ট্ৰেনটি ২৬৪ কিলোমিটার পর্যন্ত দূরত্ব কভার করতো ৫ ঘণ্টা ২৮ মিনিটে। সেইসময় এই ইন্টারসিটি সপ্তাহে একদিন চলাচল করতো। ১৯০৬ থেকে ১৯৩৯ ট্ৰেনটির চলাচল অব্যাহত ছিল। কিন্তু দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় ট্ৰেনটির চলাচল বাধাগ্ৰস্ত হয়। এরপর থেকে ট্ৰেনটি বেশ কবার পুনরায় চালু করা হয়েছিল। ১৯৫০ সালের ১ নভেম্বর থেকে ট্ৰেনটির চলাচল পুনরায় শুরু হয় এবং সেই ধারা এখনও অব্যাহত রয়েছে।

ভারতের দ্বিতীয় ইন্টারসিটি ট্ৰেন হলো মুম্বই সিএসএমটি-পুনে ডেকান এক্সপ্ৰেস,এটি চালু হয়েছিল ১৯৩০ সালের ১ জুনে। ১৯৯২ সালের ১ জুলাই ইন্দোর এবং নতুনদিল্লির মধ্যে প্ৰথম ইন্টারসিটি এক্সপ্ৰেস চালু করা হয় ভারতের প্ৰধান শহরের মধ্যে এটিই ছিল রাতভর চলা একমাত্ৰ ইন্টারসিটি ট্ৰেন।

১৯৯৭ সালের ১ জুলাই চেন্নাই-কোয়েম্বাটুর এবং বেঙ্গালুরু-হুবালির মধ্যে দুটি ইন্টারসিটি এক্সপ্ৰেস ট্ৰেন চালু করা হয়।

অন্যান্য খবরের জন্য পড়ুনঃ চলন্ত ট্ৰেনে দিল্লি পুলিশের হাতে ধর্ষিতা তিহার জেলের মহিলা কয়েদি

অধিক খবরের জন্য ভিডিও দেখুন: Passenger saved from getting run over by train in Guwahati

Next Story