ন্যাশনাল

নেটফ্লিক্স দেখেছি,প্ৰাণায়াম করেছি,বললেন করোনা থেকে সেরে ওঠা দিল্লির প্ৰথম ব্যক্তি

নেটফ্লিক্স

নয়াদিল্লিঃ দিল্লিতে করোনা ভাইরাসে আক্ৰান্ত প্ৰথম ব্যক্তি রোহিত দত্ত বলেছেন,দিল্লির সফরদারজং হাসপাতালে আইসোলেশনে থাকাকালে তিনি তার ফোনে নেটফ্লিক্স দেখেছেন,প্ৰাণায়াম করেছেন। তিনি বলেন,ওই হাসপাতালে যে সমস্ত সু্যোগ সুবিধা রয়েছে তা কোনও ‘বিলাসী হোটেলের’ চেয়ে কম নয়। হোলির সময় কেন্দ্ৰীয় স্বাস্থ্যমন্ত্ৰী হর্ষ বর্ধনের ফোন কল পেয়ে তিনি রীতিমতো আশ্চর্য বোধ করেছেন। দত্ত বলেন,হর্ষ বর্ধন তাঁকে হোলির শুভেচ্ছা জানানোর পাশাপাশি তাঁর স্বাস্থ্যেরও খোঁজ নিয়েছেন। তিনি আরও বলেন,মারণ ভাইরাসের প্ৰাথমিক লক্ষণ বুঝতে পেরেই তিনি চিকিৎসকের শরণাপন্ন হন। হাসপাতালের ডাক্তাররা তাঁকে বলেছেন,তার শরীরে যে সংক্ৰমণ হয়েছে তা খুবই হাল্কা প্ৰকৃতির এবং তিনি এর থেকে সেরে উঠতে পারবেন।

দত্ত উল্লেখ করেন নিজের ছেলের জন্মদিনে তিনি হাজির ছিলেন এবং ওই একই রাতেই জ্বর ওঠে তাঁর। পরীক্ষার পর তাঁর কোভিড-১৯-এ আক্ৰান্ত হওয়ার লক্ষণ ধরা পড়ে। দত্ত হাসপাতালের সমস্ত কর্মীদের ,ধন্যবাদ জানিয়েছেন তাঁদের সেবামূলক কাজের জন্য।

এদিকে করোনা ভাইরাস সংক্ৰান্ত মহামারির মোকাবিলায় দক্ষিণ এশীয় আঞ্চলিক সহযোগিতা সংস্থার(সার্ক)সদস্য দেশগুলিকে একটা জরুরিকালীন অভিন্ন তহবিল গড়ে তুলতে ভারত ১০ মিলিয়ন ডলার সাহায্যের প্ৰস্তাব রেখেছে। বিশ্বে ত্ৰাস সৃষ্টিকারী এই মহামারির মোকাবিলায় একটা যৌথ পরিকল্পনা উদ্ভাবনে সার্ক সদস্যভুক্ত আটটি দেশ রবিবার এক ভিডিও কনফারেন্স মিলিত হয়। বিশ্বে কূটনীতির ইতিহাসে এটা একটা অভূতপূর্ব প্ৰস্তাব। বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থা(হু)এ সময়ে জন সমাবেশ এড়িয়ে চলার যে পরামর্শ দিয়েছে তার প্ৰতি নজর রেখেই প্ৰধানমন্ত্ৰী নরেন্দ্ৰ মোদি সার্ক সদস্যভুক্ত দেশগুলির প্ৰতি এই ভিডিও কনফারেন্সের প্ৰস্তাব রেখেছিলেন। সার্ক সদস্যভুক্ত অন্যান্য রাষ্ট্ৰ

আফগানিস্তান,বাংলাদেশ,ভুটান,মালদ্বীপ,নেপাল,শ্ৰীলংকা এবং পাকিস্তান প্ৰধানমন্ত্ৰী মোদির ওই প্ৰস্তাবটি গ্ৰহণ করে এর প্ৰতি স্বাগত জানিয়ে এগিয়ে আসে। রবিবার সন্ধ্যায় এই ভিডিও কনফারেন্সে নেতৃত্ব দেন প্ৰধানমন্ত্ৰী মোদি। প্ৰধানমন্ত্ৰী বলেন,কোভিড-১৯ এর প্ৰাদুর্ভাবের সময় থেকে এই রোগ জীবাণু রোধে ভারত পদক্ষেপ নিয়ে আসছে। উল্লেখ্য,চিনের উহান শহর থেকে এই রোগ জীবাণুর সংক্ৰমণ ঘটে বিশ্ব জুড়ে। আফগানিস্তানের রাষ্ট্ৰপতি আশ্ৰফ ঘানি,বাংলাদেশের প্ৰধানমন্ত্ৰী শেখ হাসিনা,ভুটানের প্ৰধানমন্ত্ৰী কেপি শর্মা ওলি,শ্ৰীলংকার রাষ্ট্ৰপ্ৰধান গোটাবায়া রাজাপাকসা এবং পাকিস্তানের স্বাস্থ্য প্ৰতিমন্ত্ৰী জাফর মির্জা মহামারি রোধে কি কি পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে এক এক করে তার বিস্তারিত ব্যাখ্যা করেন। নেপালের প্ৰধানমন্ত্ৰী অলিও সম্প্ৰতি অস্ত্ৰোপচার করিয়েছেন,তিনিও এই শীর্ষ সম্মেলনের অংশ নেন।

 

অন্যান্য খবরের জন্য পড়ুনঃ করোনার আতঙ্কঃ করমর্দন নয়,নমস্কারই এখন বিশ্বে সৌজন্য প্ৰদর্শনের মাধ্যম

অধিক খবরের জন্য ভিডিও দেখুন: Hawker knocked down by speeding car in Jorhat