Begin typing your search above and press return to search.

ভুয়া খবর এবং ভুয়া তথ্য কি ভাবে বন্ধ করতে হবে?

ভুয়া খবর এবং ভুয়া তথ্য কি ভাবে বন্ধ করতে হবে?

Sentinel Digital DeskBy : Sentinel Digital Desk

  |  24 Jun 2019 12:26 PM GMT

আমরা এমন একটা যুগে বাস করছি যেখানে সোশ্যাল মিডিয়ার একটা ভিত্তি রয়েছে। আপনি আপনার পুরনো বন্ধু অথবা যেকোনও ধরনের পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে সহজেই কথা বলতে পারেন যার সঙ্গে দীর্ঘদিন আপনার কোনও দেখাসাক্ষাৎ হয়নি। খবর এবং তথ্যাদি থেকে আপনি কিন্তু জ্ঞান আহরণ করতে পারেন যা সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করা হয়েছে। তবে এর একটা অভিশাপের মুখেও আমাদের পড়তে হতে পারে। কেউ যদি কোনও ধরনের আগ্ৰহোদ্দীপক তথ্য প্ৰকাশ করে থাকেন তাহলে তা অনেক সময় ইন্টারনেটে দাবানলের মতো ছড়িয়ে পড়ে। সারা বিশ্বের চোখে এটা একটা নতুন নজির সৃষ্টি করে।

এখন কথা হলো যদি খবরটি ভুল অথবা ভুয়া হয়,তাহলে সেটা যেকোনও ব্যক্তিকে ধ্বংসের মুখে ঠেলে দিতে পারে। ওই মূল পোস্টের উৎস খুঁজে পাওয়া সহজ কাজ নয়। কিছু দুষ্টচক্ৰ বা সংগঠন শক্তিশালী অবস্থানে থাকা কিছু লোকের মর্যাদা ক্ষুণ্ণ করার চেষ্টা করে বিভিন্ন উপায়ে। তাই ওই সব ভুয়া খবরের বিরুদ্ধেই আমাদের অবস্থান নিতে হবে এবং নিষিদ্ধ করতে হবে সেগুলো। বিভিন্ন অসাধু সংস্থা এজাতীয় ভুয়া খবর বিভিন্ন সোশ্যাল মিডিয়ায় প্ৰচারের জন্য হরেক রকমের কৌশল অবলম্বন করে। এই অসাধু সংস্থাগুলো তাদের ভুয়া খবর প্ৰচারে ফেসবুক এবং টুইটারের মতো জনপ্ৰিয় মাধ্যমগুলোকেই বেছে নেয়। ইনস্টাগ্ৰাম একটা ব্লু টিক দিয়ে অ্যাকাউণ্টগুলি পরীক্ষা করার প্ৰক্ৰিয়া ইতিমধ্যেই শুরু করেছে। ফেসবুকও নিজস্ব ধারা উন্নত করতে এবং প্ৰত্যেক ও প্ৰতিটি পোস্টের শ্ৰেণি বিভাজন করার চেষ্টা করছে। তারা শিক্ষামূলক পোস্টগুলি দ্ৰুত উন্নতি ঘটানোর কাজে ব্ৰতী হয়েছে। এমনটা করা হলে তা ব্যাপক সংখ্যক মানুষের কাছে পৌঁছবে।

ভুয়া খবর নিষিদ্ধ করতে এবং ব্যবহারকারীদের এই খবরগুলি শেয়ার করা বন্ধ করতে একটা রুটিন প্ৰস্তুত করেছে-

  • খবরের শিরোনামের প্ৰতি নজর রাখুন

অধিকাংশ ভুয়া খবরের শিরোনাম অত্যন্ত আকর্ষণীয় হয়ে থাকে আর সেজন্যই এই খবরগুলো দর্শকদের সহজেই আকর্ষণ করে।

  • খবরের উৎস পরীক্ষা করুন

অনুগ্ৰহ করে খবরের উৎস পরীক্ষা করুন

  • খবরের তারিখ পরীক্ষা করুন

অধিকাংশ ভুয়া খবরে সঠিক তারিখের উল্লেখ থাকে না

  • ভুয়া ফোটো

ভুয়া খবরে ক্লিকবেট অথবা চোখে লাগার মতো ফোটো ব্যবহার করা হয়।

ফেসবুক ইতিমধ্যেই এই রুটিন চালু করছে। আমাদের প্ৰত্যেকেরই এটা সঠিকভাবে অনুসরণ করা উচিত। গত বছর থেকেই তারা এবিষয়ে প্ৰচার শুরু করেছে। এখন ফেসবুক হচ্ছে এমন একটা স্থান যেখানে আপনি একটা প্ৰকৃত স্থানীয় খবরের ঝলক সহজেই পেতে পারেন। এটা খুবই সহজ বোধ্য। আন্তর্জাতিক পরিবেশ সম্পর্কে তথ্য সংগ্ৰহেও এটা আপনাকে সাহায্য করতে পারে। তারা শুধু প্ৰকৃত ও যথার্থ খবরই পরিবেশন করে থাকে।

ক্ষতিকারক খবরের বিষয়বস্তু বিভিন্ন নমুনায় আসতে পারে। অধিকাংশ ক্ষেত্ৰে দেখা গেছে অত্যন্ত চটকদার শিরোনামও ক্লিকবেটে এই খবরগুলি আসে। এটা বন্ধ করতে ফেসবুক কমিউনিটি কিছু কৌশল অবলম্বন করেছে যা হলোঃ-

  • বিদ্বেষ ছড়ানো যে কোনও ধরনের রাজনৈতিক মতামত,সন্ত্ৰাসী বা সমাজবিরোধী কার্যকলাপের প্ৰতি সমর্থন থাকা লিংকে ক্লিক করবেন না। বরঞ্চ এব্যাপারে সংশ্লিষ্ট পেজে রিপোর্ট করুন।
  • আপনার নিউজ ফিডে কোনও ধরনের ক্লিকবেটে আমল দেবেন না। শুধু খবরের উৎস পরীক্ষা করুন এবং সেটি ব্লক করুন অথবা সচেতনতার জন্য শেয়ার করুন এবং অন্যদের বলুন এটা শেয়ার না করতে।
  • কোনও ব্যক্তি সম্পর্কে কোনও ধরনের নেতিবাচক বিষয়বস্তু শেয়ার করবেন না।

এগুলো হলো ভুল তথ্য ও ভুয়া খবরের রমরমা বন্ধ করার কিছু পন্থা। ফেসবুক এবং অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্ম এটা বন্ধ করতে পদক্ষেপ নিচ্ছে। কোনও খবর শেয়ার করার আগে আমাদের খবরের উৎস,ফোটো এবং তারিখ ইত্যাদি সঠিকভাবে খুঁটিয়ে দেখতে হবে। যদি খবরটি ভুয়া হয়,তাহলে আমাদের তা শেয়ার করা বন্ধ করতে হবে অথবা এমনভাবে শেয়ার করা চাই যাতে তা সচেতনতা বা সতর্কতা সৃষ্টি করতে পারে।

অন্যান্য খবরের জন্য পড়ুনঃ বিপ্লব জায়ার বিরুদ্ধে ভুয়া তথ্য সম্প্ৰচার করে গ্ৰেপ্তার কনস্টেবল

Next Story