Begin typing your search above and press return to search.

পাঁচ জন উপ মুখ্যমন্ত্ৰী নিয়োগ করে রেকর্ড গড়লেন অন্ধ্ৰের মুখ্যমন্ত্ৰী জগন মোহন রেড্ডি

পাঁচ জন উপ মুখ্যমন্ত্ৰী নিয়োগ করে রেকর্ড গড়লেন অন্ধ্ৰের মুখ্যমন্ত্ৰী জগন মোহন রেড্ডি

Sentinel Digital DeskBy : Sentinel Digital Desk

  |  8 Jun 2019 11:38 AM GMT

অমরাবতীঃ পাঁচ পাঁচজন উপ মুখ্যমন্ত্ৰী নিয়োগ করে রেকর্ড গড়লেন অন্ধ্ৰপ্ৰদেশের মুখ্যমন্ত্ৰী ওয়াইএস জগন মোহন রেড্ডি। এটা রেকর্ডই বলা যায়। ভারতের কোনও রাজ্যেই পাঁচ জন উপ মুখ্যমন্ত্ৰী নেই। সর্বোচ্চ সংখ্যক উপ মুখ্যমন্ত্ৰী থাকা রাজ্য হলো অন্ধ্ৰ প্ৰদেশ। রেড্ডি শনিবার তাঁর মন্ত্ৰিসভা সম্প্ৰসারণ করছেন। মুখ্যমন্ত্ৰী রেড্ডি শুক্ৰবার তাঁর মন্ত্ৰিসভায় পাঁচজন উপ মুখ্যমন্ত্ৰী নিয়োগের কথা ঘোষণা করেন। ওয়াইএসআর কংগ্ৰেস পার্টির নব নির্বাচিত বিধায়কদের সভায় একথা ঘোষণা করেন রেড্ডি। ২৫ সদস্যের পূর্ণাঙ্গ অন্ধ্ৰ মন্ত্ৰিসভায় রেড্ডির অধীনে ৫ জন উপমুখ্যমন্ত্ৰী থাকছেন।

রাজ্যের পাঁচটি প্ৰধান সামাজিক গোষ্ঠী বিশেষ করে তফশিলি জাতি,তফশিলি উপজাতি,অনগ্ৰসর শ্ৰেণি,সংখ্যালঘু এবং কাপু সম্প্ৰদায় থেকে এই পাঁচ উপ মুখ্যমন্ত্ৰীকে নিয়োগ করছেন রেড্ডি। আজই শপথ নিচ্ছেন পাঁচ উপমুখ্যমন্ত্ৰী। গত মাসে অনুষ্ঠিত বিধানসভার নির্বাচনে ওয়াইএসআরসিপি দল ১৭৫টি আসনের মধ্যে ১৫১টিতে জয় ছিনিয়ে নেয়। দলটি বিধানসভার নির্বাচনে প্ৰায় ৫০ শতাংশ ভোট লাভে সমর্থ হয়। তাছাড়া লোকসভার নির্বাচনেও ২৫টি আসনের মধ্যে ২২টি দখল করে ওয়াইএসআরসিপি। মোটের ওপর রাজ্যে তেলগু দেশম পার্টির(টিপিপি)আধিপত্য একেবারে গুড়িয়ে দিতে সফল হয় রেড্ডির দল। রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা বলেছেন,পাঁচজন উপমুখ্যমন্ত্ৰী নিয়োগের বড় কারণ হচ্ছে জগন মোহন রাজ্যের এই সব সম্প্ৰদায়ের মানুষের সমর্থন কুড়োতে চাইছেন যাতে ভবিষ্যতে তাঁর ভোটব্যাংক আরও শক্তিশালী হয়। রেড্ডি তাঁর মন্ত্ৰিসভায় সমাজের দুর্বল ও অগ্ৰসর শ্ৰেণির বিধায়কদেরই ঠাঁই দিয়েছেন। চন্দ্ৰবাবু নাইডুর টিডিপি সরকারে সামাজিক ও রাজনৈতিক ক্ষেত্ৰে শক্তিশালী কামা সম্প্ৰদায়েরই আধিপত্য ছিল। কিন্তু রেড্ডি সে পথে না গিয়ে দুর্বল ও অনগ্ৰসর ও পিছিয়ে থাকা শ্ৰেণিগুলোর বিকাশে মন্ত্ৰী বাছাই করেছেন। পাঁচ উপ মুখ্যমন্ত্ৰী নিয়োগ করে ওয়াইএসআরসিপি দল এবং সরকারের রাশ রেড্ডি নিজের হাতেই রাখলেন। সরকারের অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ দপ্তরও রেড্ডি নিজের হাতে রাখতেই আগ্ৰহী বলে জানা গেছে।

Next Story