Top
Begin typing your search above and press return to search.

করোনা আতঙ্কঃ জনতা ভবনে জনগণের প্ৰবেশ বন্ধ

করোনা আতঙ্কঃ জনতা ভবনে জনগণের প্ৰবেশ বন্ধ

Sentinel Digital DeskBy : Sentinel Digital Desk

  |  19 March 2020 7:04 AM GMT

গুয়াহাটিঃ কোভিড-১৯-এর বিরুদ্ধে প্ৰতিরোধমূলক ব্যবস্থা হিসেবে অসম সরকারের সচিবালয় প্ৰশাসন(প্ৰতিষ্ঠান)বিভাগ বুধবার এক নতুন নির্দেশে সচিবালয়ে সাধারণ মানুষের আনাগোনা সম্পূর্ণ বন্ধ করেছে। একই সঙ্গে জনতাভবন চত্বরে ই-পাস দেওয়া ২০২০-র ৩১ মার্চ পর্যন্ত বন্ধ রাখা হয়েছে। অবিলম্বে কার্যকর হয়েছে এই নির্দেশ। তবে জরুরি কোনও যোগা্যোগের প্ৰয়োজন হলে ভিজিটর্সদের সংশ্লিষ্ট আধিকারিকের সঙ্গে ফোন অথবা ই-মেলে যোগা্যোগ করার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। কয়েকশো দর্শনার্থী বুধবার সকালে সচিবালয়ে ঢোকার প্ৰবেশপত্ৰ সংগ্ৰহের জন্য সারি দেওয়ার খবরটি কর্তৃপক্ষের নজরে আসার পরই এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। একটা সময় রাজ্যের স্বাস্থ্যমন্ত্ৰী স্বয়ং বেরিয়ে এসে ভিড় এড়িয়ে চলতে জনগণকে বোঝানোর চেষ্টা করেন। তিনি উল্লেখ করেন মাত্ৰ ১০০ জন পাশের জন্য কাউন্টারে আবেদন করতে পারবেন। এরআগে সোমবার করোনা সংক্ৰমণের বিরুদ্ধে সতর্কতামূলক ব্যবস্থা হিসেবে সচিবালয়ে মাত্ৰ ১০০ জন দর্শনার্থীকে প্ৰবেশের অনুমতি দেওয়া হয়েছিল। জন সমাগম সীমিত করতেই এই ব্যবস্থা গ্ৰহণ করা হয়।

অন্য এক নির্দেশে মন্ত্ৰীদের আবাস ‘মিনিস্টার কলোনিতেও ৩১ মার্চ অবধি নিষিদ্ধ করা হয়েছে জনগণের প্ৰবেশ। মন্ত্ৰীদের প্ৰাইভেট সেক্ৰেটারিকে অনুরোধ করা হয়েছে কোনও দর্শনার্থী মন্ত্ৰীর সঙ্গে দেখা করতে চাইলে তারা যেন সংশ্লিষ্ট মন্ত্ৰীর আগাম অনুমতি নেন।

এদিকে,স্বাস্থ্য বিভাগের কর্মকর্তারা জনতা ভবনের মধ্যেই করোনা সম্পর্কে সচেতনতা সৃষ্টির জন্য প্ৰচার অভিযান চালান। সচিবালয়ের কর্মচারীদেরও এই মারণ জীবাণু সম্পর্কে সচেতন ও সতর্ক থাকতে বলা হয়েছে। কর্মচারীদের মধ্যে কারো শরীরে করোনা ভাইরাসের লক্ষণ দেখা গেলে প্ৰশাসনকে জানাতে বলা হয়েছে কর্মচারীদের।

এদিকে করোনা সংক্ৰমণের বিরুদ্ধে সতর্কতামূলক ব্যবস্থা হিসেবে আরও কিছু ব্যবস্থা গ্ৰহণ করেছে দিশপুর। সমস্ত বার,পারলার,নাইট ক্লাব,সেলুন(ইউনিসেক্স)পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত বন্ধ রাখার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। এই নির্দেশ কার্যকরী হয়েছে বুধবার থেকে। আবগারি বিভাগ এবং রাজ্যের গৃহ ও রাজনৈতিক বিভাগের দুটি সার্কুলারের পরই এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। প্ৰত্যেক জেলাশাসক এবং আবগারি সুপার ও ডেপুটি সুপারদের এই সরকারি নির্দেশ কঠোরভাবে কার্যকর করতে বলা হয়েছে।

অন্যান্য খবরের জন্য পড়ুনঃ লখিমপুরের কাকই সংরক্ষিত বনাঞ্চলে বেদখলকারীদের বিরুদ্ধে উচ্ছেদ অভিযান বন বিভাগের

অধিক খবরের জন্য ভিডিও দেখুন: Author Dr. Paramanada Majumdar honoured with Maghai Oja Award

Next Story