Begin typing your search above and press return to search.

গুয়াহাটিতে ভূমিস্খলন,বাড়িতে আটকে পড়া ৮ জনকে পরে উদ্ধার

গুয়াহাটিতে ভূমিস্খলন,বাড়িতে আটকে পড়া ৮ জনকে পরে উদ্ধার

Sentinel Digital DeskBy : Sentinel Digital Desk

  |  17 July 2019 1:01 PM GMT

গুয়াহাটিঃ মহানগরী গুয়াহাটিতে মঙ্গলবার আবারও ধস নামলো। শহরের নীলাচলপুরের বেজবরুয়া নগরে ধসে জনৈক গোবিন্দ্ৰ নাথ শর্মার বাড়িটির মারাত্মক ক্ষতি হয়। প্ৰাপ্ত রিপোর্ট মতে,জনৈক পঙ্কজ শৰ্মার গাৰ্ড ওয়াল গোবিন্দ্ৰ নাথ শৰ্মার বাড়ির ওপর ভেঙে পড়ে। ঘটনাটি ঘটে মঙ্গলবার রাত সাড়ে ৯টা নাগাদ। পঙ্কজ শর্মা ও গোবিন্দ্ৰ শর্মা উভয়েই নীলাচলপুর বেজবরুয়া নগরের পড়শি।

এখানে উল্লেখ করা যেতে পারে যে পঙ্কজ শর্মা সন্ধ্যা ছটা নাগাদ বিষয়টি প্ৰশাসনের নজরে এনেছিলেন। কিন্তু প্ৰশাসন কোনও উপযুক্ত পদক্ষেপ নেয়নি। সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলার সময় পঙ্কজ শর্মা বলেন,ঘটনার কয়েক ঘণ্টা পরে প্ৰশাসনের আধিকারিক ও কর্মীরা ঘটনাস্থলে এসে পৌঁছন। স্থানীয় বিধায়ক রমেন্দ্ৰ নারায়ণ কলিতা পরিস্থিতি সম্পর্কে খোঁজ নিতে ব্যর্থ হওয়ায় ক্ষোভ প্ৰকাশ করেন পঙ্কজ শর্মা। গার্ড ওয়ালটি গোবিন্দ্ৰ শর্মার বাড়ির ওপর ভেঙে পড়ার সময়ে বাড়ির ভিতরে আটজন মানুষ ছিলেন।

এরআগে গত ৯ জুলাই জোড়াবাটের কাছে ১১ মাইল এলাকায় প্ৰচণ্ড বৃষ্টির ফলে ধসের নিচে চাপা পড়ে ৬০ বছর বয়সী একজন বৃদ্ধ গুরুতর আহত হয়েছিলেন। ওই ব্যক্তিটিকে হেমেশ্বর বরা ওরফে বি বরা নামে শনাক্ত করা হয়েছিল।

সূত্ৰটির মতে,৩৭নং জাতীয় সড়কের পাশে থাকা নিজের রেস্তোরাঁয় বরা যখন কাজ করছিলেন ওই সময় পাহাড় থেকে আচমকা ধস নামে। ধসে বরার খাবারের দোকান চালা ঘরটি তার ওপর ভেঙে পড়ে এবং তাঁর দুটো পা মাটির নিচে চাপা পড়ায় তিনি গুরুতর আহত হন। জোড়াবাট পুলিশ এবং স্থানীয় মানুষ তাঁকে উদ্ধার করে সঙ্গে সঙ্গে গুয়াহাটি মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করান।

দুর্নীতিগ্ৰস্ত ব্যবসায়ীরা জোড়াবাট অঞ্চলে বেআইনিভাবে মাটি কাটার জন্য অনেকবারই এই এলাকায় ধস নামার ঘটনা ঘটেছে।

এদিকে স্থানীয় মানুষ এই এলাকার পাহাড়ে অবৈধভাবে মাটি কাটা বন্ধ করার জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে আর্জি জানিয়েছেন। প্ৰচণ্ড বৃষ্টিপাত এবং ভূমিকম্পের সময় পাহাড়ের ঢালু গায়ে ধসের ঘটনা বেশি ঘটে থাকে।

অন্যান্য খবরের জন্য পড়ুনঃ ইন্দোনেশিয়ায় বন্যা,ভূমিস্খলনে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ১০৭

Next Story