Top
Begin typing your search above and press return to search.

অরুণাচল প্ৰদেশে দুর্ঘটনাগ্ৰস্ত এএন-৩২ বিমানের ছয় বায়ুসেনা কর্মীর শব উদ্ধার

অরুণাচল প্ৰদেশে দুর্ঘটনাগ্ৰস্ত এএন-৩২ বিমানের ছয় বায়ুসেনা কর্মীর শব উদ্ধার

Sentinel Digital DeskBy : Sentinel Digital Desk

  |  21 Jun 2019 9:06 AM GMT

ইটানগরঃ ভারতীয় বায়ুসেনার দুর্ঘটনাগ্ৰস্ত এএন-৩২ বিমানের ছয় আরোহীর শব অবশেষে উদ্ধার করা হয়েছে অরুণাচল প্ৰদেশের পরী মাউন্টেন রেঞ্জের দুর্ঘটনা স্থল থেকে। ছয় বায়ু সেনা কর্মীর শব উদ্ধার করে রাজ্যের পশ্চিম শিয়াং জেলার আলোতে উড়িয়ে নেওয়া হয়েছে। একজন বরিষ্ঠ সরকারি কর্মকর্তা বৃহস্পতিবার একথা জানিয়েছেন। অভিশপ্ত ওই বিমানে সওয়ার হয়েছিলেন বায়ু সেনার ১৩ জন কর্মী।

উল্লেখ্য,গত ৩ জুন বিমানটি যোরহাটের ররৈয়া বিমানবন্দর থেকে অরুণাচল প্ৰদেশের মেচুকার উদ্দেশে আকাশে উড়ান দিয়েছিল দুপুর ১২.২৭ মিনিট নাগাদ। আকাশে ওড়ার প্ৰায় আধ ঘণ্টা পরই বিমান বন্দরের রাডার থেকে বিমানটি অদৃশ্য হয়ে যায়। মেচুকা অ্যাডভান্সড ল্যান্ডিঙে অবতরণের আগেই নিখোঁজ হয় বিমানটি।

নিখোঁজ বিমানের হদিশ খুঁজতে দূরপাল্লার ম্যারিটাইম রিকনাইসেন্স এয়ারক্ৰ্যাফট পি৮আই এবং ভারতীয় মহাকাশ গবেষণা সংস্থার(ইসরো)স্যাটেলাইটকে কাজে লাগানো হয়। টানা তল্লাশি অভি্যানের আট দিন পর বায়ু সেনার একটি বিমান অরুণাচল প্ৰদেশের উত্তর পূর্বে টেটোর লিপো গ্ৰামের কাছে ১২ হাজার ফুট উচ্চতায় বিমানটির ধ্বংসাবশেষ খুঁজে পায়। এরপরই শুরু হয় অভিশপ্ত বিমানের কর্মী ও ব্ল্যাকবক্সের খোঁজ নেওয়ার অভিযান। আবহাওয়া খারাপ থাকায় উদ্ধারকারীদের দুর্ঘটনাস্থলে পৌঁছতে প্ৰচণ্ড বাধার সম্মুখীন হতে হয়। তবে বুধবার উদ্ধারকারীরা দুর্ঘটনাস্থল থেকে অভিশপ্ত বিমানটির ৬ জন আরোহীর শব উদ্ধার করতে সফল হয়। এখনও আরও সাত জন বায়ু সেনা কর্মীর শব উদ্ধার করা বাকি আছে।

শিয়াঙের জেলাশাসক রাজীব তাকুক জানান,ছয়জনের শব বুধবার সন্ধে পাঁচটা নাগাদ দুর্ঘটনা স্থল থেকে বিমানে আলোতে নিয়ে আসা হয়েছে। বাকি সাতজনের শব আনার প্ৰক্ৰিয়া চলছে। এই ছটি শব বৃহস্পতিবার যোরহাটে আইএফ-এর এয়ারবেসে নেওয়া হয়েছে-জানান তাকুক। তিনি বলেন,অপ্ৰতুল যোগা্যোগ ব্যবস্থার জন্য পাহাড় চূড়ার দুর্ঘটনা স্থল থেকে শবগুলো আনতে বিভিন্ন অসুবিধার মুখে পড়তে হয়েছে উদ্ধারকারীদের।

উল্লেখ্য,ভারতীয় বায়ু সেনার পক্ষ থেকে গত সপ্তাহে ঘোষণা করা হয়েছিল যে ভেঙে পড়া বিমানের ককপিট ভয়েস রেকর্ডার এবং ফ্লাইট ডাটা রেকর্ডার যাকে সাধারণত ব্ল্যাকবক্স বলা হয়েছে থাকে তা দুর্ঘটনা স্থল থেকে উদ্ধার করা গেছে।

পাহাড়ে আবহাওয়ার কিছুটা উন্নতি হওয়ায় বায়ু সেনা ও সেনাবাহিনীর পক্ষে এখন কোনওরকম বাধার সম্মুখীন না হয়ে উদ্ধার অভি্যান চালানো অনেকটা সহজ হবে বলে আশা করছেন জেলাশাসক তাকুক।

দুর্ঘটনাগ্ৰস্ত এএন-৩২ বিমানটি রাশিয়ায় নির্মিত। বিমানের ব্ল্যাক বক্স উদ্ধার হওয়ায় কী পরিস্থিতিতে বিমানটি দুর্ঘটনার মুখে পড়লো তা জানা যাবে বলে আশা করা হচ্ছে।

অন্যান্য খবরের জন্য পড়ুনঃ বায়ুসেনার নিখোঁজ বিমানের ধ্বংসাবশেষ মিলল অরুণাচলের দুর্গম পাহাড়ে

Next Story