ন্যাশনাল

আমিষ খাবার করোনা ভাইরাসের কারণ নয়ঃ এইমস ডিরেক্টর

করোনা

এআইআইএমএস(এইমস)-এর ডিরেক্টর ড.রণদীপ গুলেরিয়া করোনা ভাইরাস এবং কিভাবে তা সংক্ৰামিত হচ্ছে সে সম্পর্কে চারদিকে সৃষ্ট কিছু ধারণা নিয়ে নিজের মতামত খোলসা করেছেন। তিনি বলেন,আমিষ খাবার করোনা ভাইরাস ছড়ানোর কারণ নয়। তবে স্বাস্থ্য রক্ষার ক্ষেত্ৰে সাধারণ সতর্কতা হিসেবে সব ধরনের মাংস ভালো করে ধুয়ে সঠিকভাবে রান্না করে তা অবশ্যই খাওয়া যেতে পারে-বলেন এইমস-এর ডিরেক্টর। মাংস বিশেষ করে চিকেন থেকে করোনা ছড়াচ্ছে বলে কিছুলোকের মনে যে ধারণার জন্ম হয়েছে তারই পরিপ্ৰেক্ষিতে ড.গুলেরিয়া উল্লিখিত কথাটি পরিষ্কার করেন। তিনি বলেন,আতঙ্কিত না হয়ে এই সময়ে সতর্কতা অবলম্বন করে প্ৰতিরোধমূলক ব্যবস্থা নেওয়া উচিত। আবহাওয়া জনিত অবস্থার জন্য করোনার জীবাণু ছড়াচ্ছে বলে কেউ কেউ যে দাবি করেছেন সেটাও ঠিক নয়। কারণ গ্ৰীষ্মপ্ৰধান দেশগুলিতেও করোনার জীবাণু সংক্ৰামিত হয়েছে। তিনি বলেন,গরম জল অথবা মদ করোনার জীবাণু মারতে পারে না।

সোশিয়েল মিডিয়া প্ল্যাটফর্ম বিশেষ করে হোয়াটস অ্যাপের মাধ্যমে চিকেন থেকে করোনা ভাইরাস ছড়িয়েছে বলে যে গুজব ব্যাপকভাবে রটেছে তাতে সারা দেশে মুরগি বিক্ৰির ওপর ব্যাপকভাবে প্ৰভাব পড়েছে। বর্তমানে মুরগি বিক্ৰির পরিমাণ ৫০ শতাংশ নেমে গেছে-এগ্ৰো বিজনেস কোম্পানি গদরেজ এগ্ৰোভেট লিমিটেড-এর একজন আধিকারিক একথা বলেন। গদরেজ এগ্ৰোভেট-এর ম্যানেজিং ডিরেক্টর বিএস যাদব বলেন,মাত্ৰ চার সপ্তাহে মুরগি বিক্ৰির পরিমাণ ৭৫ মিলিয়ন থেকে ৪০ মিনিয়নে নেমে এসেছে। উৎপাদনকারীরা প্ৰতি মুরগির উৎপাদন ব্যয় ৩০ থেকে ৩৫ টাকা তুলতে পারছেন না। কিছু রিপোর্টের মতে উৎপাদনকারীরা বর্তমানে মুরগির উৎপাদন ইতিমধ্যেই কমিয়ে দিয়েছেন। এরফলে আগামি দিনগুলোতে মুরগির দাম যে বেড়ে যাবে সেটা অবধারিত।

কে টি রামারাও-এর মতো তেলেঙ্গানার মন্ত্ৰী এবং অন্যান্যরা হায়দরাবাদে এক ইভেন্টে ওই গুজবকে একপাশে ঠেলে দিয়ে চিকেন খেয়েছেন। চিনের উহানে করোনা ভাইরাসের উৎপত্তি হয় এবং এই রোগ জীবাণুতে ওখানে সহস্ৰাধিক মানুষ মারা গেছেন। এরপরই এই মারণ জীবাণু বিশ্বের অন্যান্য দেশেও ছড়িয়ে পড়ে।

 

অন্যান্য খবরের জন্য পড়ুনঃ করোনা আতঙ্কঃ ৩১ মার্চ পর্যন্ত বন্ধ থাকছে আগ্ৰার তাজমহল

অধিক খবরের জন্য ভিডিও দেখুন: KMSS leader Akhil Gogoi granted bail as NIA fails to submit charge-sheet