Begin typing your search above and press return to search.

‘ঘোষিত বিদেশিদের জন্য স্থায়ী ডিটেনশন কেন্দ্ৰ ৩১ ডিসেম্বরের মধ্যে’

‘ঘোষিত বিদেশিদের জন্য স্থায়ী ডিটেনশন কেন্দ্ৰ ৩১ ডিসেম্বরের মধ্যে’

Sentinel Digital DeskBy : Sentinel Digital Desk

  |  6 Nov 2019 10:43 AM GMT

গুয়াহাটিঃ রাজ্য এবং সেই সঙ্গে দেশে অবৈধ বিদেশিদের জন্য প্ৰথম স্থায়ী ডিটেনশন সেন্টার নির্মাণে এর আগে ২০১৯-এর ৩১ আগস্ট যে চরম সময়সীমা বেঁধে দেওয়া হয়েছিল অসম সরকার তা পূরণে ব্যর্থ হয়েছে। অবৈধ বিদেশিদের থাকার জন্য স্থায়ী ডিটেনশন কেন্দ্ৰ নির্মাণের ব্যাপারে ৩১ আগস্ট চরম সময়সীমা নির্ধারণ সম্পর্কে দিশপুর সুপ্ৰিম কোর্টকে জানিয়েছিল। সূত্ৰটি দ্য সেন্টিনেলকে জানিয়েছে,রাজ্য সরকার এখন বিদেশিদের জন্য স্থায়ী ডিটেনশন কেন্দ্ৰ নির্মাণে পরবর্তী সময়সীমা ২০১৯-এর ৩১ ডিসেম্বর ধার্য করেছে।

কেন্দ্ৰীয় স্বরাষ্ট্ৰমন্ত্ৰক(এমএইচএ)স্থায়ী ডিটেনশন কেন্দ্ৰ নির্মাণ সম্পর্কিত প্ৰকল্পটি অনুমোদন করার পরিপ্ৰেক্ষিতে অসম সরকার রাজ্য পুলিশ হাউসিং কর্পোরেশন লিমিটেডকে গোয়ালপাড়া জেলার মাটিয়ায় প্ৰথম পূর্ণাঙ্গ ডিটেনশন কেন্দ্ৰের নির্মাণ কাজ চালাতে নির্দেশ দিয়েছে। প্ৰস্তাবিত ডিটেনশন কেন্দ্ৰটি নির্মাণে খরচ হবে আনুমানিক ৪৬.৫১ কোটি টাকা। প্ৰায় ১৫ বিঘা জমিতে এই ডিটেনশন কেন্দ্ৰ নির্মাণ করা হবে। এটির নির্মাণ সম্পূর্ণ হলে ৩০০০ ঘোষিত বিদেশিকে এই কেন্দ্ৰে রাখা সম্ভব হবে।

এর আগে,রাজ্য সরকার অবৈধ বিদেশিদের রাখার জন্য রাজ্যের ছটি জেলা কারাগারকে অস্থায়ী ডিটেনশন কেন্দ্ৰ হিসেবে নির্ধারণ করেছিল। বর্তমানে রাজ্যের ছটি জেলা কারাগারে এধরনের ১০০০-এরও বেশি বন্দিকে রাখা হয়েছে। জেলা কারাগুরগুলি এই সমস্ত ডিটেনশন ক্যাম্প চালাচ্ছে।

অস্থায়ী এই সব ডিটেনশন কেন্দ্ৰ রয়েছে গোয়ালপাড়া,শিলচর,কোকরাঝাড়,যোরহাট,তেজপুর এবং ডিব্ৰুগড়ে। মানবিক দিকটি বিবেচনা করেই ‘দেশহীন’ এই সমস্ত অবৈধ লোকেদের স্থায়ী ডিটেনশন কেন্দ্ৰে রাখার প্ৰস্তাব রাখা হয়েছে,যতদিন না সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ এদের ভাগ্য সম্পর্কে চূড়ান্ত কোনও সিদ্ধান্তে উপনীত হচ্ছেন।

অন্যান্য খবরের জন্য পড়ুনঃ বন ও জৈববৈচিত্ৰ্য সংরক্ষণে অসম-ফ্ৰান্সের মধ্যে ৫০০ কোটি টাকার চুক্তি স্বাক্ষরিত

অধিক খবরের জন্য ভিডিও দেখুন: 83rd Raas Mahotsav Celebrations to begin in Nagaon’s Kampur from Nov 11

Next Story