রাজ্যের খবর

আনন্দমুখর পরিবেশে পালিত ইদ-উল-আধা

ইদ-উল-আধা

সারা বিশ্বের সঙ্গে আজ দেশেও ব্যাপক উৎসাহ উদ্দীপনার সঙ্গে পবিত্ৰ ইদ পালন করা হয়। ইদ উপলক্ষে বাজারগুলো ইদের সামগ্ৰী নিয়ে পসরা সাজিয়ে বসেছে। কোরবানির ইদ উপলক্ষে বাজারে সমান্তরালভাবে উঠেছে ছাগলের দর।

গোরখপুরের বাজারে সলমন খান নামে একটি ছাগল বিক্ৰি হয়েছে ৮ লক্ষ টাকায়। আজ কোরবাণীর ইদ হওয়ায় বাজারে ছাগলের দরও বেড়েছে অস্বাভাবিক। আল্লার নামে এদিন ছাগল কোরবাণ করার প্ৰথা রয়েছে। উত্তর প্ৰদেশের গোরখপুরের বাজারে ৮ লক্ষ টাকায় বিক্ৰি হওয়া ছাগলের নাম সলমান খান। সলমান খানের মালিক জানিয়েছেন,ছাগলটির ওজন ৯৫ থেকে ১০০ কেজির মতো হবে। একই সঙ্গে তিনি বলেন,‘সলমানকে আমরা পরিবারের সদস্যের মতোই প্ৰতিপালন করেছি। দেখতে সুন্দর ছাগলটি বিছানায় ঘুমুতো,বালিশ নিয়ে। আমাদের মতো আহারও গ্ৰহণ করতো। ঘাস এবং গাছের পাতা খেতো না সলমান। চিপস,ড্ৰাই ফ্ৰুট ইত্যাদি খেয়ে সলমান তার পেট ভরাতো। প্ৰতিদিনই ছাগলটির বাবদ ৭০০ থেকে ৮০০ টাকা ব্যয় হতো’।

দিন কয়েক আগে হামিরপুরে ২১১ কেজি ওজনের একটি ছাগল ৮ লক্ষ টাকায় বিক্ৰি হওয়ার ঘটনা রীতিমতো সাড়া ফেলেছিল। ইদ-উল-আধার উপলক্ষে অব্ৰার খান নামে এক ব্যক্তি ২১১ কেজি ওজনের ওই ছাগলটি বিক্ৰি করেছিলেন। অব্ৰার খান উত্তরপ্ৰদেশের হামিরপুরের বাসিন্দা। তিনি জানিয়েছিলেন অনেক টাকা খরচ করে ছাগলটিকে তিনি বড় করেছেন। এই ছাগলটিকে বড় করতে তাকে প্ৰচুর সময়ও দিতে হয়েছে। অব্ৰার আরও বলেছিলেন,প্ৰতিদিন এক ঘণ্টা সময় ছাগলটির মালিশের প্ৰয়োজন হতো,প্ৰতিদিন ইদে কোরবাণী দেওয়ার জন্য অনেকেই ৬ লাখ টাকায় ছাগলটি তার কাছ থেকে কেনার আগ্ৰহ দেখিয়েছিলেন। কিন্তি তিনি দেননি। অবশেষে নিলামের বাজারে ৮ লাখ টাকায় তিনি ছাগলটিকে বিক্ৰি করেন। এদিকে ইসলাম ধর্মাবলম্বী মানুষ ব্যাপক উৎসাহ উদ্দীপনার সঙ্গে আজ ইদ-উল-আধা পালন করেন।

ইদের নামাজ শেষে মুসলমান ভাইরা পরস্পরকে আলিঙ্গন করে শুভেচ্ছা বিনিময় করেন। পবিত্ৰ এই ইদের অর্থ হচ্ছে ত্যাগ। ত্যাগের মাধ্যমে সমস্ত হিংসা,ভেদাভেদ তুলে শান্তি প্ৰতিষ্ঠার স্বার্থে পালিত হয় পবিত্ৰ ইদ উৎসব। নবি-ইব্ৰাহিম খলিল উল্লাহর ত্যাগের স্মৃতিতে স্মরণ করেই বিশ্ব জুড়ে ইসলাম ধর্মাবলম্বীরা পালন করে আসছেন ইদ-উল-আধা। অসমের বিভিন্ন প্ৰান্তের ইসলাম ধর্মাবলম্বীরা পালন করছেন ইদ-উল-আধা।

 

অন্যান্য খবরের জন্য পড়ুনঃ ইদ উপলক্ষে ৮ লক্ষ টাকায় বিকলো ২১১ কেজি ওজনের ছাগল

অধিক খবরের জন্য ভিডিও দেখুন: Bipasa Hrangkhawal- the first woman air traffic controller of Tripura