Begin typing your search above and press return to search.

পাকিস্তানকে কুলভূষণ যাদবের ফাঁসির সাজা স্থগিত রাখার রায় আন্তর্জাতিক ন্যায় আদালতের

পাকিস্তানকে কুলভূষণ যাদবের ফাঁসির সাজা স্থগিত রাখার রায় আন্তর্জাতিক ন্যায় আদালতের

Sentinel Digital DeskBy : Sentinel Digital Desk

  |  18 July 2019 1:43 PM GMT

নয়াদিল্লিঃ আন্তর্জাতিক ন্যায় আদালত(আইসিজে)কুলভূষণ যাদবের মৃত্যুদণ্ড স্থগিত রাখার নির্দেশ দিয়েছে পাকিস্তানকে। এই নির্দেশ দিয়ে আন্তর্জাতিক ন্যায় আদালত ভারতের পক্ষেই রায় দিল বুধবার। পাকিস্তানের সামরিক আদালত কুলভূষণের মৃত্যুদণ্ডের যে আদেশ দিয়েছিল আন্তর্জাতিক আদালত পাকিস্তানকে তা পুনর্বিবেচনা করতে বলেছে। গুপ্তচর বৃত্তি ও সন্ত্ৰাসবাদের অভিযোগে ভারতীয় নৌসেনা আধিকারিক কুলভূষণকে গ্ৰেপ্তার করে কারাগারে রেখেছে পাকিস্তান। আইসিজে বলেছে,পুনর্বিবেচনা পর্ব শেষ না হওয়া অবধি কুলভূষণের ফাঁসির সাজা স্থগিত থাকছে। আন্তর্জাতিক আদালত আরও বলেছে,কুলভূষণের দ্ৰুত মুক্তি এবং তাঁকে ভারতে ফিরিয়ে আনার জন্য তারা চেষ্টা জারি রাখবে।

পাক সামরিক আদালত কুলভূষণকে মৃত্যুদণ্ডের সাজা শোনানোর পর ভারত এর জোর বিরোধিতা করে পাকিস্তানের এই সিদ্ধান্ত পরিহার করার দাবি জানিয়ে আন্তর্জাতিক আদালতের শরণাপন্ন হয়েছিল। বুধবার দ্য হেগে আন্তর্জাতিক আদালতে কুলভূষণের মামলাটি নিয়ে বিচার সভা বসে। বিচার সভায় পাকিস্তানকে প্ৰকাশ্যে ভর্ৎসনা করে আন্তর্জাতিক আদালত। আইসিজে বিচারের রায়ে বলেছে,পাকিস্তান ভিয়েনা কনভেশনকে লঙ্ঘন করেছে। এদিন বিচারপতি আব্দুলকুয়াই আহমেদ ইউসুফের নেতৃত্বে বিচার সভাটি অনুষ্ঠিত হয়।

প্ৰধানমন্ত্ৰী নরেন্দ্ৰ মোদি বুধবার এক টুইটে বলেছেন,‘আমরা আইসিজে-র এই রায়ের প্ৰতি স্বাগত জানাচ্ছি। এতে সত্য ও ন্যায়েরই প্ৰতিফলন ঘটেছে। সমস্ত বিষয় অনুপুঙ্খভাবে খতিয়ে দেখে এই রায় দেওয়ার জন্য প্ৰধানমন্ত্ৰী আইসিজে-কে অভিনন্দন জানিয়েছেন। আমি নিশ্চিত ছিলাম কুলভূষণ যাদব ন্যায় বিচার পাবেন। প্ৰত্যেক ভারতীয়র নিরাপত্তা ও কল্যাণে আমাদের সরকার সব সময় কাজ করে যাবে’-টুইটে উল্লেখ করেছেন মোদি।

ভারতের পক্ষ থেকে যুক্তি দেওয়া হয়েছিল যে,নৌ বাহিনী থেকে অবসর গ্ৰহণের পর কুলভূষণ যাদব ব্যবসায় নামেন এবং ব্যবসা সংক্ৰান্ত কাজেই তিনি ইরানে গিয়েছিলেন। সেখানেই পাক গোয়েন্দারা তাঁকে অপহরণ করে পাকিস্তানে নিয়ে আসে এবং তাঁকে কারাগারে পুরে দেয়। ভারতের কোনও দূতকে কূলভূষণের সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে না দিয়ে পাকিস্তান রীতিমতো ভিয়েনা কনভেনশনের শর্ত লঙ্ঘন করেছে বলে ভারতের তরফে যুক্তি দেখানো হয়েছিল। আন্তর্জাতিক চাপের মুখে পড়ে ইসলামাবাদ ২০১৭ সালের মে মাস অবধি যাদবের ফাঁসির সাজা স্থগিত রাখে।

২০১৬ সালের মার্চে পাকিস্তান কুলভূষণকে গ্ৰেপ্তার করেছিল। চরবৃত্তি ও সন্ত্ৰাসবাদের অভি্যোগে পাক সামরিক আদালত ২০১৭ সালের এপ্ৰিলে তাঁকে ফাঁসির সাজা শোনায়। কুলভূষণ যে একজন ভারতীয় পাকিস্তান সেকথা স্বীকার করেছে।

ভিয়েনা কনভেনশনের শর্ত অনু্যায়ী ভারতীয় কোনও দূত বা কৌশুলিকে কুলভূষণের সঙ্গে সাক্ষাৎ করার সু্যোগ পর্যন্ত পাকিস্তান দেয়নি। তবে ২০১৭ সালের ডিসেম্বরে কুলভূষণকে তার স্ত্ৰী ও মায়ের সঙ্গে দেখা করার অনুমতি দিয়েছিল পাকিস্তান। পাক অফিসাররা কুলভূষণের পরিবারের লোকেদের সঙ্গে দুর্ব্যবহার করার অভি্যোগও রয়েছে। কূলভূষণের মা ও স্ত্ৰী ভারতে ফিরে এসে ওই অভি্যোগ করেছিলেন।

আইসিজে স্পষ্ট বলেছে,কূলভূষণের সঙ্গে কোনও দূতকে সাক্ষাৎ করতে না দিয়ে ইসলামাবাদ ভিয়েনা কনভেনশনের শর্ত পুরোপুরি লঙ্ঘন করেছে।

অন্যদিকে পাক বিদেশমন্ত্ৰী শাহ মহম্মদ কুরেশি আইসিজে-র এই রায়কে পাকিস্তানের জয় বলে ঘোষণা করেন। তিনি বলেন,রাষ্ট্ৰপুঞ্জের শীর্ষ আদালত কুলভূষণের মুক্তির ব্যাপারে পাকিস্তানকে কোনও নির্দেশ দেয়নি। তাই যাদব পাকিস্তানেই থাকবেন। পাক আইন অনু্যায়ী তাঁর সঙ্গে আচরণ করা হবে। তাই এটা পাকিস্তানেরই জয়-টুইট করে বলেন কুরেশি।

অন্যান্য খবরের জন্য পড়ুনঃ পাকিস্তান অসামরিক বিমান উড়ানের জন্য তাদের আকাশপথ ফের খুলে দিলো

Next Story