সংবাদ শিরোনাম

গুয়াহাটির কুমারপাড়ায় দুষ্কৃতীর গুলিতে নিহত দোকান কর্মচারী

দোকান কর্মচারী

গুয়াহাটিঃ মহানগরী গুয়াহাটিতে অপরাধ প্ৰবণতা ক্ৰমেই বৃদ্ধি পাচ্ছে। চুরি,ডাকাতির মতো ঘটনা নিত্যদিন ঘটছে। সেই সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে খুনোখুনির ঘটনার অভিযোগও। শহরের ,ব্যস্ত কুমারপাড়া এলাকায় বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় অজ্ঞাত পরিচয় পাঁচ জনের একটি দুষ্কৃতী দল একজন ব্যক্তিকে খুব কাছে গুলি চালিয়ে হত্যা করে। নিহত ব্যক্তিকে শ্যাম সুন্দর রাতোয়া নামে শনাক্ত করা হয়েছে। ভরলুমুখ পুলিশ থানার অন্তর্গত কুমারপাড়ায় জগদম্বা আয়রণ অ্যান্ড স্টিল ইন্ডাস্ট্ৰির কর্মচারী ছিলেন শ্যাম সুন্দর। পাঁচ জনের দুষ্কৃতী দলটি ওই ব্যবসা প্ৰতিষ্ঠানে হানা দিয়ে শ্যাম সুন্দরকে খুব কাছে থেকে গুলি চালায়। সংকটজনক অবস্থায় শ্যাম সুন্দরকে শহরের একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি করা হলেও পরে জিএমসিএইচ-এ তিনি মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়েন।

পুলিশ সূত্ৰ জানাচ্ছে,দুষ্কৃতী দলটি বিকেল ৪-৫টার মধ্যে ওই ব্যবসা প্ৰতিষ্ঠানে আসে ‘দোকানে ঢুকেই তারা হিন্দিতে জানতে চায় শ্যাম কে? দোকান কর্মচারী তিনিই শ্যাম বলে ইতিবাচক জবাব দিলে ওই দলের একজন তাঁকে লক্ষ্য করে সোজা গুলি চালিয়ে দেয়। এর পর তারা ওই স্থান থেকে পালিয়ে যায়। গুলিটি শ্যামের গলার ডানদিকে বিদ্ধ হয়। পালবার সময় ঘটনাস্থলে একটি ব্যাগ ফেলে রেখে যায় দলটি।

প্ৰায় ৫৫ বছর বয়সী শ্যাম সুন্দর রাজস্থানের লোক। বেশ কবছর ধরে এই ব্যবসা প্ৰতিষ্ঠানে কাজ  করছিলেন তিনি। ঘটনাক্ৰমে এই ব্যবসায়িক প্ৰতিষ্ঠানের মালিকের নাম শ্যামলাল শর্মা। পুলিশ সন্দেহ করছে দুষ্কৃতী দলটি সম্ভবত দোকান মালিকের খোঁজেই এসেছিল। দুষ্কৃতীরা যে ব্যক্তির খোঁজে এসেছিল ভুলবশত রাওয়াতকে সেই ব্যক্তি ভেবে গুলি চালিয়ে দেয় তারা। পুলিশের মতে,সম্ভবত নাম বিভ্ৰাটেই কর্মচারীটিকে এভাবে প্ৰাণ দিতে হলো। তবে সৌভাগ্যবশত মালিক শ্যামলাল শর্মা প্ৰাণে বেঁচে যান।

গুলির আওয়াজে আশপাশ এলাকায় হইচই শুরু হয়। স্থানীয় মানুষ ওই আওয়াজের উৎস খুঁজতে গিয়ে দেখেন শ্যাম সুন্দর রক্তাক্ত অবস্থায় দোকানের ভিতর পড়ে আছেন। গুলিটি শ্যামের গলার ডানদিকে এফোঁড়-ওফোঁড় করে দেয়। আহত অবস্থায় তাঁকে প্ৰথমে নিয়ে যাওয়া হয় আটগাঁও স্থিত মারোয়াড়ি হাসপাতালে এবং পরে সেখানে থেকে স্থানান্তর করা হয় গুয়াহাটি মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে। সেখানেই ডাক্তাররা শ্যাম সুন্দরকে মৃত বলে ঘোষণে করেন।

পুলিশ এই ঘটনার তদন্তে নেমেছে। ঘটনার আড়ালে কোনও ব্যবসায়িক শত্ৰুতা ছিল কি না পুলিশ তা খতিয়ে দেখছে। দোকানের অন্যান্য কর্মচারীদেরও পুলিশ জিজ্ঞাসাবাদ করছে।

 

 

অন্যান্য খবরের জন্য পড়ুনঃ উ.পুবে আরও মেডিক্যাল কলেজ হচ্ছে,দিল্লি ৯০ শতাংশ খরচ বহন করবে

অধিক খবরের জন্য ভিডিও দেখুন: TET Qualified Primary Teachers staged sit-in demonstration in Biswanath | The Sentinel News |