Begin typing your search above and press return to search.

অসমে এলপিজি-র নতুন বিকল্প আসছে বাজারে

অসমে এলপিজি-র নতুন বিকল্প আসছে বাজারে

Sentinel Digital DeskBy : Sentinel Digital Desk

  |  28 Nov 2019 8:11 AM GMT

গুয়াহাটিঃ অসমে পরিবেশ বান্ধব রান্নার গ্যাস বাণিজ্যিক ভিত্তিতে চালু হতে চলেছে। পরম্পরাগত এলপিজি গ্যাস সিলিন্ডার থেকে এটা অনেক বেশি হাল্কা হবে। রান্নার জন্য এই গ্যাস হবে সবচেয়ে সস্তা। এখানে উল্লেখ করা যেতে পারে যে ঘরোয়া রান্না বান্নার জন্য ভারতে এধরনের বিকল্প গ্যাস এই প্ৰথম ব্যবহৃত হচ্ছে। এটা হচ্ছে মিথানল গ্যাস। আসাম পেট্ৰো কেমিক্যাল-লিমিটেড(এপিএল)সুইডেনের প্ৰযুক্তি গ্ৰহণ করে এই গ্যাসের ব্যবহার প্ৰদর্শন করেছে। এপিএল প্ৰতিদিন ১০০ টন মিথানল উৎপাদন করে।

দ্য সেন্টিনেলের সঙ্গে কথা বলার সময় এপিএল-এর চেয়ারম্যান জগদীশ ভুঁইয়া বলেন,সুইডেন মডেলের এই গ্যাস কনটেনারের ক্ষমতা হচ্ছে ২ কেজি। বর্তমানে এলপিজি ব্যবস্থায় যে ধরনের গ্যাস স্টোভ ব্যবহৃত হচ্ছে তার থেকে নতুন গ্যাস স্টোভ ভিন্ন ধরনের।

‘আমরা গ্যাস পাত্ৰ বা কনটেনার এবং গ্যাস স্টোভ স্থানীয়ভাবে উৎপাদনের কাজ ইতিমধ্যেই শুরু করেছি। গ্যাসের গুণগত মান এবং দুটো উৎপাদিত সামগ্ৰী সুলভ মূল্যে গ্ৰাহকদের হাতে তুলে দিতে আমরা বিশেষভাবে আলোকপাত করছি। বর্তমানে আমরা বিআইএস(ব্যুরো অফ ইন্ডিয়ান স্ট্যান্ডার্ড)-এর অনুমোদনের অপেক্ষায় আছি। আমরা আশা করছি খুব শীঘ্ৰই এব্যাপারে অনুমোদন পেয়ে যাবো। ২০২০-র জানুয়ারিতে দুটো প্ৰোডাক্ট বাজারে ছাড়ার লক্ষ্য ধার্য করেছি আমরা’।

তিনি আরও বলেন,মিথানল গ্যাসের বেশকিছু ইতিবাচক দিক রয়েছে। এটি পরিবেশ বান্ধব হওয়া ছাড়াও কোনও ধরনের বিস্ফোরণ ঘটার একটুও সম্ভাবনা নেই। তাছাড়া,মানুষ দু কেজির গ্যাস কনটেনার অনায়াসে যেখানে সেখানে বয়ে নিয়ে যেতে পারবেন।

ভুঁইয়া আরও বলেন,এই প্ৰোডাক্টের জন্য ব্যাপক হারে ডিস্ট্ৰিবিউটর শিপ নেটওয়র্ক গড়ে তোলা হবে। ফিল আপ করা কনটেনার পাওয়ার প্ৰক্ৰিয়াও হবে সহজ। গ্যাস কনটেনার কাউন্টার থেকে পাল্টে নিতে পারবেন। এপিএল সূত্ৰটি জানিয়েছে,পাঁচজনের একটি পরিবার মাসে মাত্ৰ ৩০০ টাকা খরচ করে গ্যাস কনটেনার পাবেন।

আরও জানা গিয়েছে,বাগানে চা পাতা শুকোতেও পরীক্ষামূলক ভিত্তিতে মিথানল গ্যাস ব্যবহার করা হচ্ছে। বর্তমানে চা বাগানে চাপাতা শুকনোর প্ৰক্ৰিয়ায় ডিজেল,কয়লা ও প্ৰাকৃতিক গ্যাস ব্যবহার করা হচ্ছে। নিথানল গ্যাসের ব্যবহার পরিবেশ বান্ধব হবে এবং আর্থিক ক্ষেত্ৰেও সাশ্ৰয় হবে যথেষ্ট। সূত্ৰটি আরও বলেছে,ডিব্ৰুগড়ের বাগানগুলিতে মিথানল গ্যাস ব্যবহার করা হচ্ছে এবং এতে উৎসাহজনক ফলাফল পাওয়া গিয়েছে।

অন্যান্য খবরের জন্য পড়ুনঃ স্থানীয় এনজিওগুলোকে ইসলামিক দেশের তহবিল সরবরাহের তদন্ত দাবি মুসলিম সংগঠনের

অধিক খবরের জন্য ভিডিও দেখুন: Dokmoka Mob Lynching: Abhi-Neel case awaits justice after 1 ½ years

Next Story