Begin typing your search above and press return to search.

রাজ্যে করোনা ভাইরাসে আক্ৰান্তের কোনও নিশ্চিত তথ্য নেই

রাজ্যে করোনা ভাইরাসে আক্ৰান্তের কোনও নিশ্চিত তথ্য নেই

Sentinel Digital DeskBy : Sentinel Digital Desk

  |  18 Feb 2020 7:53 AM GMT

গুয়াহাটিঃ নোভেল করোনা ভাইরাসের সন্দেহজনক মামলাগুলো নিয়ে অসম এখনও পর্যন্ত ৩০০ যাত্ৰীর স্বাস্থ্য পরীক্ষা করেছে। মারণ করোনা ভাইরাসের সংক্ৰমণে চিনে এখনও পর্যন্ত ১৬০০ জনের বেশি মানুষ প্ৰাণ হারিয়েছেন। রাজ্যের স্বাস্থ্য বিভাগের জনৈক কর্মকর্তা বলেছেন,অসমে এই ভাইরাসে আক্ৰান্ত কোনও ব্যক্তিকে এখনও পাওয়া যায়নি। ‘গুয়াহাটি এবং নগাঁওয়ে দুজন ব্যক্তি করোনা ভাইরাসের লক্ষণ নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলেন। কিন্তু পরীক্ষায় ওই ভাইরাস সংক্ৰমণের কোনও প্ৰমাণ পাওয়া যায়নি’-বলেন কর্মকর্তাটি।

‘চিন,হংকং,জাপান এবং থাইল্যান্ড থেকে যে সমস্ত যাত্ৰীরা ফিরে এসেছেন তাদের ঘরে পৃথকভাবে থাকতে বলা হয়েছে। সেই সঙ্গে নোভেল করোনা ভাইরাসের কোনও লক্ষণ বুঝতে পারলে সঙ্গে সঙ্গে কর্তৃপক্ষকে রিপোর্ট করতে বলা হয়েছে’। ঘরে পৃথকভাবে থাকাকালে একজন ব্যক্তিকে ২৮ দিন পর্যবেক্ষণে রাখা হবে। তাদের বলা হয়েছে তারা যেন ঘরে পৃথকভাবে থাকেন এবং স্বাস্থ্য রক্ষার পদ্ধতি মেনে চলার পাশাপাশি লোকজনের সঙ্গে যোগাযোগ কম রাখেন’।

করোনা ভাইরাসের সংক্ৰমণ সম্পর্কে অসম এরআগে এই ভাইরাসে আক্ৰান্ত সন্দেহে এর নমুনা পরীক্ষার জন্য পুনেতে পাঠিয়েছিল। অবশ্য সেগুলির রিপোর্ট নিগেটিভ এসেছে। তবে গৌহাটি মেডিক্যাল কলেজ এবং হাসপাতালে এই ভাইরাস পরীক্ষার ব্যবস্থা রয়েছে। এজাতীয় ভাইরাস পরীক্ষায় প্ৰায় ২৪ ঘন্টা সময়ের প্ৰয়োজন।

অন্যদিকে,সতর্কতামূলক ব্যবস্থা হিসেবে জেলা হাসপাতালগুলিকে দুটো বিছানা আলাদা রাখতে বলা হয়েছে। করনা ভাইরাসের মোকাবিলায় ছটি মেডিক্যাল কলেজ পৃথক ওয়ার্ডে ৫টি করে বিছানা রাখার ব্যবস্থা করেছে সতর্কতামূলক ব্যবস্থা হিসেবে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মতে,নোভেল করোনা ভাইরাস সংক্ৰমণের সাধারণ লক্ষণগুলো হলো শ্বাসকষ্ট,জ্বর,কফ,শ্বাসপ্ৰশ্বাস ক্ষীণ হয়ে আসা এবং শ্বাস নিতে কষ্ট হওয়া ইত্যাদি। এই জীবাণু সংক্ৰমণ মারাত্মক হলে নিমুনিয়া এবং অ্যাকুইট রেসপারেটরি সিন্ড্ৰোম,কিডনি অকেজো হয়ে মৃত্যু পর্যন্ত হতে পারে।

বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থা(হু)এই জীবাণু সংক্ৰমণ প্ৰতিরোধে জনগণকে নিয়মিত হাত ধোয়া,মুখ ও নাক ঢেকে রাখা বিশেষকরে কফ ও হাঁচির সময় মুখ ঢেকে রাখা ছাড়াও মাংস ও ডিম ইত্যাদি ভালো ভাবে সেদ্ধ করে খাওয়ার পরামর্শ দিয়েছে। তাছাড়া কোনও ব্যক্তির স্বাসকষ্ট জনিত রোগ থাকলে তার থেকে দূরে থাকা এবং মাস্ক পরিধান করা প্ৰয়োজন।

অন্যান্য খবরের জন্য পড়ুনঃ এনআরসি ছুট,এফটি মামলা ২০২১-এর জনগণনায় প্ৰভাব ফেলবে না

অধিক খবরের জন্য ভিডিও দেখুন: AGP’s General Council Meeting held in Guwahati

Next Story