Top
undefined
Begin typing your search above and press return to search.

এনআরসিতে দুর্নীতি সম্পর্কে সদনে বিস্তারিত জানাবোঃ হিমন্ত

এনআরসিতে দুর্নীতি সম্পর্কে সদনে বিস্তারিত জানাবোঃ হিমন্ত

Sentinel Digital DeskBy : Sentinel Digital Desk

  |  29 Nov 2019 10:47 AM GMT

গুয়াহাটিঃ রাজ্যে রাষ্ট্ৰীয় নাগরিক পঞ্জি(এনআরসি)নবায়নে কোটি টাকার দুর্নীতি হয়েছে বলে বৃহস্পতিবার বিধানসভার বাইরে সাংবাদিকদের কাছে মুখ খুললেন অর্থমন্ত্ৰী হিমন্তবিশ্ব শর্মা। অসমের অ্যাকাউনটেন্ট জেনারেলের ইন্সপেকশন নোটের উদ্ধৃতি দিয়ে তিনি বলেন,এনআরসি নবায়নকালে ব্যাপক দুর্নীতি হয়েছে বলে ওই রিপোর্টে উল্লেখ করা হয়েছে। তিনি বলেন,ওই ইন্সপেকশন নোটটি রাজ্য সরকারের কোনও নথি নয়। কম্পট্ৰোলার অ্যান্ড অডিটর জেনারেলই(ক্যাগ)ওই রিপোর্টটি প্ৰস্তুত করেছে বলে শর্মা উল্লেখ করেন। তিনি বলেন,রিপোর্টে উল্লেখ করা হয়েছে যে এনআরসি নবায়ন কালে পরতে পরতে দুর্নীতি ও অনিয়ম হয়েছে। রাজ্যে এনআরসি নবায়নে ১৬০০ কোটি টাকা নয়ছয়ের অভিযোগ আগেও শোনা গিয়েছিল। কত টাকার দুর্নীতি হয়েছে সাংবাদিকরা তা জানতে চাইলে শর্মা বলেন,এই হিসেব গুনতে হলে ক্যালকুলেটর নিয়ে বসতে হবে। তবে শ শ কোটি টাকার দুর্নীতি হয়েছে।

চূড়ান্ত এনআরসিকে একটা ত্ৰুটিপূর্ণ নথি হিসেবে অভিহিত করে শর্মা বলেন,প্ৰাক্তন এনআরসি সমন্বয়ক প্ৰতীক হাজেলা রাজ্যে নাগরিক পঞ্জি নবায়নের কাজে একের পর এক ভুল করে গেছেন। তিনি বলেন,ক্যাগের ইন্সপেকশন রিপোর্টে এনআরসি নবায়নে যে দুর্নীতির তথ্য উদ্ধৃত করা হয়েছে সে ব্যাপারে কেউ কখনও সুপ্ৰিম কোর্টকে কিছুই জানায়নি। তাই হাজেলা ঠিকঠাকই কাজ করছেন সুপ্ৰিম কোর্ট সেটাই ধরে নিয়েছিল।

‘আগামি ৪ অথবা ৫ ডিসেম্বর আমরা বিধানসভায় ক্যাগের ইন্সপেকশন নোটটি তুলে ধরে হাজেলার ভূমিকা সম্পর্কে বিস্তারিত জানাবো’-বলেন শর্মা।

‘ক্যাগের রিপোর্টটি আমাদের হাতে অনেক আগেই এসেছিল। কিন্তু এনআরসি-র মতো একটা গুরুত্বপূর্ণ প্ৰক্ৰিয়া চলায় এবং এই প্ৰক্ৰিয়ায় যাতে কোনও বিঘ্ন সৃষ্টি হয় তার জন্য রাজ্য সরকার ইন্সপেকশন নোটটি প্ৰকাশ করেনি। তবে কোনও এক সময়ে এই রিপোর্ট জনসমক্ষে আনতেই হতো সরকারকে। এনআরসি নবায়ন চলাকালে মানুষের মধ্যে ভুল বোঝাবুঝি সৃষ্টি হতে পারে এমনটা ভেবেই সরকার ক্যাবের রিপোর্টটি চেপে রেখেছিল’।

অর্থমন্ত্ৰী আরও বলেন,ওই রিপোর্টে কম্পট্ৰোলার অ্যান্ড অডিটর জেনারেলের(ক্যাগ)স্বাক্ষরও রয়েছে। তিনি বিষয়টি আরও খোলসা করে বলেন,নাগরিক পঞ্জির নবায়ন চলাকালে ক্যাগের কর্মীরা নাগরিক পঞ্জির কার্যালয়ে গিয়ে ইন্সপেকশন করেছিলেন। ওই ইন্সপেকশন রিপোর্টের ১৬ দফায় তুলে ধরা হয়েছে বিশাল দুর্নীতির তথ্য। চূড়ান্ত এনআরসিতে নানা ভুলত্ৰুটির জন্য হাজেলাকে কাঠগড়ায় তুলে হিমন্ত বলেন,নাগরিক পঞ্জিতে যে ত্ৰুটি রয়েছে সেটা একশো শতাংশ সত্য। তবে আগামি ৪ অথবা ৫ ডিসেম্বর হাজেলার আসল স্বরূপ বিধানসভায় তুলে ধরবো। তখনই রাজ্যের মানুষ বুঝতে পারবেন হাজেলা কী কাজ করে গেছেন-বলেন শর্মা। নাগরিক পঞ্জি নিয়ে আমাদের ফের নতুন করে ভাবতে হবে। তবে বিধানসভায় এসব বিষয়ে আলোচনা করবো আমরা-বলেন হিমন্ত। এনআরসি নবায়নে যে ব্যাপক নয়ছয় ও দুর্নীতি হয়েছে ক্যাবের ইন্সপেকশন রিপোর্টটি তারই এক অকাট্য প্ৰমাণ। তিনি বলেন,সারা দেশে যখন এনআরসি হবে তখন অসমের এনআরসির ভুল ত্ৰুটিগুলো সংশোধন করা যাবে।

এদিকে রাজ্যে নতুন করে এনআরসি নবায়নে সরকারের প্ৰস্তাবের প্ৰতিবাদে বৃহস্পতিবার কংগ্ৰেস ও এআইইউডিএফ বিধায়করা বিধানসভায় ওয়াক আটক করেন। নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল সম্পর্কে শর্মা বলেন,সংসদের চলতি অধিবেশনেই বিলটি পাস হয়ে যাবে। তিনি বলেন,স্বরাষ্ট্ৰমন্ত্ৰী অমিত শাহ ক্যাব নিয়ে উত্তর পূর্বাঞ্চলের মুখ্যমন্ত্ৰী ও বিভিন্ন সংগঠনের সঙ্গে অনুপুঙ্খ আলোচনা করবেন।

অন্যান্য খবরের জন্য পড়ুনঃ জবরদখলকারীদের কবলে রাজ্যের বিশাল বনভূমি

অধিক খবরের জন্য ভিডিও দেখুন: Two Rhino Poachers apprehended at Kaziranga National Park, Arms Seized

Next Story