Begin typing your search above and press return to search.

অসমিয়া মানুষের রক্ষাকবচের ব্যবস্থাই রাজ্য সরকারের কাছে মূল বিষয়ঃ মুখ্যমন্ত্ৰী সোনোয়াল

অসমিয়া মানুষের রক্ষাকবচের ব্যবস্থাই রাজ্য সরকারের কাছে মূল বিষয়ঃ মুখ্যমন্ত্ৰী সোনোয়াল

Sentinel Digital DeskBy : Sentinel Digital Desk

  |  2 Jan 2020 8:08 AM GMT

গুয়াহাটিঃ মুখ্যমন্ত্ৰী সর্বানন্দ সোনোয়াল বলেছেন,নাগরিকত্ব সংশোধনী আইনের(ক্যা)বিধি(রুলস)কি ভাবে প্ৰস্তুত করা হবে তা নিয়ে রাজ্য সরকার মূল পয়েন্টগুলির ওপর সুপারিশের ধাঁচে কিছু প্ৰস্তাব কেন্দ্ৰের কাছে পাঠিয়েছে,যাতে অসমের খিলঞ্জিয়া মানুষের জন্য রক্ষাকবচের ব্যবস্থা করা হয়। আইনের বিধি জনসমক্ষে তুলে ধরার পরই অসমিয়া মানুষের মন থেকে শঙ্কা পুরোপুরি দূর হয়ে যাবে। বুধবার নতুন বছরের প্ৰথম দিন মুখ্যমন্ত্ৰী এখানে সংবাদ মাধ্যমের সঙ্গে মত বিনিময় করছিলেন। মুখ্যমন্ত্ৰীকে এদিন আগের চেয়ে অনেকটাই খোলা মন নিয়ে কথা বলতে দেখা গেছে। ‘নাগরিকত্ব সংশোধনী আইন নিয়ে রাজ্যের একাংশ মানুষ আমার সমালোচনা করছেন,তুচ্ছ তাচ্ছিল্য করছেন। আমি রাজ্য এবং রাজ্যের খিলঞ্জিয়া মানুষজনকে ধ্বংসের পথে ঠেলে দিচ্ছি-এমন একটা ধারণার সৃষ্টি করা হয়েছে। কিন্তু বাস্তব সত্যটা হচ্ছে আমি এই মাটিরই সন্তান। আমি যতদিন মুখ্যমন্ত্ৰী আছি ততদিন কোনও বিদেশিকে আমার রাজ্যে ভাগ বসাতে দেবো না। আমি একজন সাংসদ এবং বিধায়ক ছিলাম। এখন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্ৰী। এই সবটাই হয়েছে রাজ্যের মানুষের সমর্থনে। তাই আমি কী ভাবে রাজ্যের মানুষের সঙ্গে প্ৰতারণা করতে পারি’-আবেগ ভরা কণ্ঠে বলেন মুখ্যমন্ত্ৰী। ‘রাজ্যে অসমিয়া মানুষের রক্ষাকবচের ব্যবস্থা করতে আমরা একটা পরিকল্পনা নিয়েছি। তবে এই মুহূর্তে আমি সেটা প্ৰকাশ করছি না-বলেন মুখ্যমন্ত্ৰী। ‘রাজ্যের অনেক মানুষ আমাকে বিদ্ৰুপ করছেন আমি নাকি বিজেপি-র এজেন্ডার কাছে আত্মসমর্পণ করেছি। ‘আমি সবার আগে একজন অসমিয়া এই বোধ বিলক্ষণ আমার রয়েছে। আমি একটা সর্বভারতীয় রাজনৈতিক দলে যোগ দিলেও আমি আমার অসমিয়া সত্তাকে বিকিয়ে দেইনি এবং কখনও দেবোও না’।

সোনোয়াল আরও বলেন,ক্যা আইনের রুলস এখনও প্ৰস্তুত করা হয়নি। নাগরিকত্ব আইনের বিধি প্ৰস্তুত হয়ে গেলে সবকিছু পরিস্কার হয়ে যাবে। অসমের ক্ষেত্ৰে আইনটি বলবৎ করার জন্য তার বিধি কি হবে সে ব্যাপারে রাজ্য সরকারের পক্ষ থেকে মূল পয়েন্টগুলি কেন্দ্ৰকে জানানো হয়েছে। মুখ্যমন্ত্ৰী বার বার বলেন,ক্যা নিয়ে রাজ্যের মানুষের শঙ্কিত হবার কোনও করণ নেই। ক্যার দৌলতে বাংলাদেশ থেকে আড়াই কোটি,দেড় কোটি বাংলাদেশি চলে আসবে বলে যে প্ৰচার চালানো হয়েছে তা সম্পূর্ণ মিথ্যে। মুখ্যমন্ত্ৰী বলেন খুব কম সংখ্যক লোকই নাগরিকত্ব পাবেন। তবে উদ্বাস্তুদের নাগরিকত্ব লাভের পথও সহজ হবে না বলে তিনি ইঙ্গিত দেন। চা বাগান এলাকায়ও ক্যার বিরুদ্ধে অপপ্ৰচার চালানো হয়েছে। বিদেশিরা নাকি তাদের জমি ও চাকরি কেড়ে নেবে। কংগ্ৰেস এবং বাম দলগুলি এধরনের প্ৰচার চালিয়ে রাজনৈতিক ফায়দা তুলছে-বলেন তিনি। মুখ্যমন্ত্ৰী জোর দিয়ে বলেন,ক্যার দৌলতে নগণ্য সংখ্যক লোক নাগরিকত্ব পেলেও তা অসমিয়া ভাষা,সাহিত্য ও সংস্কৃতিতে কোনও হুমকি হয়ে দাঁড়াবে না। অসম চুক্তির ৬নং দফা সম্পর্কে সোনোয়াল বলেন,কেন্দ্ৰ এই দফা রূপায়ণের জন্য উচ্চ পর্যায়ের কমিটি গঠন করে দিয়েছে। এই কমিটির ওপর আমার আস্থা রয়েছে। এই দফা রূপায়ণের মাধ্যমেই অসমিয়াদের ভাষা,সংস্কৃতি,কৃষ্টি রক্ষণাবেক্ষণের ব্যবস্থা করা হবে।

অন্যান্য খবরের জন্য পড়ুনঃ রাজ্যের সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব রত্ন ওজা চলে গেলেন

অধিক খবরের জন্য ভিডিও দেখুন: Devotees joining the queue at Ganesh Mandir in Ganeshguri

Next Story